প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (প্রথম সম্ভার).djvu/৪০০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শরৎসাহিত্যসংগ্ৰহ কখন আসবেন ? দুপুরবেলা। চন্দ্রনাথ ভিতরে প্রবেশ করিল। আনন্দ, শঙ্কা ও লজ্জা তিনের সংমিশ্রণে বুকের ভিতর কাপিয়া উঠিল—ভিতরে সরযু আছে ; কিন্তু ভিতরে প্রবেশ করিয়া অার কাহাকেও দেখিতে পাইল না। জিজ্ঞাসা করিল, বাড়িতে কি আর কেউ নেই ? না । . তারা কোথা ? কারা ? একজন স্ত্রীলোক— এই আমি ছাড়া আর ত কেউ এখানে নাই। একটা ছোট ছেলে ? না, কেউ না— চন্দ্রনাথ পইঠার উপরে বসিয়া পড়িল, কহিল, এরা তবে গেল কোথায় ? দাসী বিত্রত হইয়া পড়িল । বলিল, না গো, এখানে কেউ থাকে না। আমি আর ঠাকুরমশাই থাকি। এক মাসের মধ্যে কোন যজমানও আসেনি। চন্দ্রনাথ স্তব্ধ হইয়া মাটির দিকে চাহিয়া বসিয়া রহিল। মনে যে-সব কথা উঠিতেছিল, তাহ অন্তৰ্য্যামীই জানেন। বহুক্ষণ পরে পুনরায় জিজ্ঞাসা করিল, তুমি কতদিন এখানে আছ ? প্রায় দেড় বছর । তবুও কাউকে দেখনি ? একজন গৌরবর্ণ স্ত্রীলোক আর একটি ছেলে না-হয় মেয়ে, না-হয় শুধু ঐ স্ত্রীলোকটি, কাউকে দেখনি ? না, আমি কাউকে দেখিনি। কারো মুখে কোন কথা শোননি ? ना। চন্দ্রনাথ আর কোন কথা জিজ্ঞাসা করিল না। সেইখানে দয়াল-ঠাকুরের ‘অপেক্ষা করিয়া বসিয়া রহিল। তাহার সেই সরযু আর বঁাচিয়া নাই, তাহা সে বেশ বুঝিয়াছিল, তথাপি শুনিয়া যাওয়া উচিত, এই জন্যই বসিয়া রহিল। একএকটি মিনিট এক-একটি বৎসর বলিয়া বোধ হইতে লাগিল। প্রিহর উত্তীর্ণ হইলে হরিদাল ঠাকুর বাট আসিলেন। প্রথম দৃষ্টিতে তিনি চমকিত হইলেন, পরে চিনিতে পারিয়া শুদ্ধস্বরে কহিলেন, তাইত, চন্দ্রবাবু যে, কখন এলেন ?