প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (সপ্তম সম্ভার).djvu/১৬৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


शृंश्नांझ् জিজ্ঞাসা করে নেবেন, বলিয়া হাসিয়া প্রসঙ্গটা অকস্মাৎ চাপা দিয়া কহিল, জাঙ্গা, অত দূরে না গিয়ে আপনার স্বামীকে নিয়ে কেন আমাদের ওখানে আন্ধন না! কোথায়, আরায় ? মা গো ! সেখানে কি মানুষ থাকে! আমায় উনি ঠিকেদারী কাজ করেন বলেই আমাকে মাঝে মাঝে আরায় গিয়ে থাকতে হয়। আমি ডিহরীর কথা বলচি । শোন নদীর ওপর আমাদের ছোট একটি বাড়ি আছে, সেখানে দু’দিন থাকলে আপনার স্বামী ভাল হয়ে যাবেন। যাবেন সেখানে ? বলিয়া মেয়েটি অচলার হাত ছুটি নিজের হাতের মধ্যে টানিয়া লইয়া উত্তরের আশায় তাহার মুখের প্রতি চাহিয়া রহিল। এই অপরিচিতার ঔৎসুক্য ও আন্তরিক আগ্রহ দেখিয়া আচল মুগ্ধ হইয়া গেল। কহিল, কিন্তু আপনার স্বামীর ত অকুমতি চাই । তিনি না বললে ত যেতে পারিনে । মেয়েটি মাথা নাড়িয়া বলিল, ইস, তাই বৈ কি ! আমরা সেবা করতে দাসী বলে বুঝি সবতাতেই দাসী ? মনেও করবেন না। হুকুম দেবার বেলায় আমরাই ত কর্তা । সে দেশ পছন্দ না হলে সোজা ডিহরীতে চলে আসবেন—এতটুকু চিন্তা করবেন না, এই আপনাকে বলে দিলুম। অনুমতি নিতে হয় আমি নেব, আপনার কি গরজ ? বলিয়া এই স্বামী-সৌভাগ্যবতী মেয়েটি তাহার আনন্দের আতিশয্যে অচলাকে যেন আচ্ছন্ন করিয়া ধরিল ! আরা স্টেশন নিকটবর্তী হইয়া আসিতেছে, তাহ ট্রেনের মন্দগতিতে বুঝা গেল। সে অচলায় হাত দুটি পুনরায় নিজের ক্রোড়ের মধ্যে টানিয়া আবেশভরে বলিল, আমার সময় হ’ল, আমি চললুম, কিন্তু আপনি ভেবে ভেবে মিথ্যে মন খারাপ করতে পাবেন না বলে যাচ্ছি। আপনার কোন ভয় নেই, স্বামী আপনার খুব শীগগির ভাল হয়ে উঠবেন । কিন্তু কথা দিন, ফেরবার পথে একটিবার আমার ওখানে পায়ের ধূলো দিয়ে যাবেন ? 概 অচলা চোখের জল চাপিয়া বলিল, সেদিন যদি পাই নিশ্চয় আপনাকে একবার দেখে যাবো । মেয়েটি বলিল, পাবেন বৈ-কি, নিশ্চয় পাবেন। আপনাকে আমি চিনতে পেরেচি। এই আমি বলে যাচ্চি, আপনার এত বড় ভক্তি-ভালবাসাকে ভগবান কখনো বিমুখ করবেন না, এমন হতেই পারে না! অচলা জবাব দিতে পারল না, মুখ ফিরাইয়া একটা উচ্ছসিত বাম্পোঙ্গুলি সংবরণ করিয়া লইল । e বৃষ্টির মধ্যে গাড়ি আসিয়া প্লাটফর্থে থামিল। মেয়েটির ছোট দেবর অন্তর ছিল, সে জাগিয়া গাড়ির দরজা খুলিয়া দাড়াইল। অচলা তাহার কানের কাছে মুখ ጏ¢ፃ