প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (সপ্তম সম্ভার).djvu/২৪৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8S ফিরিবার পথে গাড়ির কোণে মাখ রাখিয়া চোখ বুজিয়া অচলা এই কথাটাই ভাবিতেছিল, আজিকার এই মূৰ্ছাটা যদি না ভাণ্ডিত। নিজের হাতে নিজেকে হত্যা করিবার বীভৎসতাকে সে মনে স্থান দিতেও পারে না, কিন্তু এমনি কোন *ाख चाडांबिक शृङ्गा । श्र्लाथ् छान शशाश्ब चूशाहेब ऑफ़-उीव्र भरब बांद्र ना জাগিতে হয় । মরণকে এমন সহজে পাইবার কি কোন পথ নাই ? কেউ কি জানে না ? s স্বরেশ তাহাকে স্পর্শ করিয়া কহিল, তুমি যে আর কোথাও যেতে চেয়েছিলে, যাবে ? চল । এর পরে কাল ত এখানে মুখ দেখানো যাবে না । কিন্তু তিনি ত কোন কথাই কাউকে বলবেন না ! স্বরেশের মুখ দিয়া একটা দীর্ঘশ্বাস পড়িল, ক্ষণকাল মৌন থাকিয় আস্তে আস্তে বলিল, না। মহিমকে আমি জানি, সে স্থণার আমাদের দুর্নামটা পৰ্য্যন্ত মুখে জানতে চাইবে না । কথাটা স্বঘ্নেশ সহজেই কহিল, কিন্তু শুনিয়া অচলার সর্বাঙ্গ শিহরিয়া উঠিল। তার পর যতক্ষণ না গাড়ি গৃহে আসিয়া থামিল, ততক্ষণ পৰ্য্যস্ত উভয়েই নিৰ্ব্বাক হইয়া রহিল। স্বরেশ তাহাকে সযত্নে, সাবধানে নামাইয়া দিয়া কহিল, তুমি একটুখানি ঘুমোবার চেষ্টা কর গে অচল, আমার কতগুলো জরুরী চিঠি-পত্র লেখবার অাছে। বলিয়া সে নিজের পড়িবার ঘরে চলিয়া গেল । শয্যায় শুইয়া অচলা ভাবিতেছিল, এই ত তাহার একুশ বংসর বয়স, ইহার মধ্যে এমন অপরাধ কাহার কাছে সে কি করিয়াছে যেজন্য এতবড় দুৰ্গতি তাহার ভাগ্যে ঘটিল। এ চিন্তা নূতন নয়, যখন-তখন ইহাই সে আপনাকে আপনি প্রশ্ন করিত এবং শিশুকাল হইতে যতদূর স্বরণ হয় মনে করিবার চেষ্টা করিত। আজ অকস্মাং মৃণালের একদিন তর্কের কথাগুলি তাহার মনে পড়িল এবং তাহারই সূত্র ধরিয়া সমস্ত আলোচনাই সে একটির পর একটি করিয়া মনে মনে আবৃত্তি করিয়া গেল। নিজেৰ বিবাহিত জীবনটা স্বামীর সহিত একপ্রকার তার বিরোধের মধ্যে দিয়াই কাটিয়াছে। কেবল শেষ কয়টিদিন তাহার রুগ্নশয্যায় স্বামীকে সে বড় श्रां★मांब्र कब्रिब्रां *ाहेब्राहिण । छैहांब छौवटनद्र बर्थन श्रांब्र ८कांन अंक बांडे, भन वर्थन निकिछ निर्फत श्बाटइ, उर्थनकाइ cनई त्रिर्ष, गश्ल ९ निर्षण थांबवद्र आहक १éडै