প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (সপ্তম সম্ভার).djvu/৩৩৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ ভালবাসার ফল, দুর্লভ বস্ব বিস্তর অর্থ রাখিয়া পরলোকগমন করিলে তাহার বিংশতিবর্ষীয় একমাত্র পুত্র ললিতমোহন শ্রাদ্ধ-শাস্তি সমাপ্তি করিয়া একদিন স্কুলে যাইয়া মাস্টারকে বলিল, মাস্টারমশায়, আমার নামটা কেটে দিন । 多 কেন বাপু ? মিথ্যে পড়ে-শুনে কি হবে ? যেজন্য পড়াশুনা, তা আমার বিস্তর আছে । বাবা আমার জন্যে অনেক পড়ে রেখে গিয়েচেন । মাস্টার চক্ষু টিপিয়া অল্প হাসিয়া বলিল, তবে আর ভাবনা কি ? এইবার চরে খাও গে। এইখানেই ললিতমোহনের বিদ্যাভাস ইতি হইল । ললিতমোহনের কাচা বয়স, তাহাতে বিস্তর অর্থ, কাজেই স্কুল ছাড়িবামাত্র বিস্তর বন্ধুও জুটিয়া গেল । ক্রমে তামাক, সিদ্ধি, গাজা, মদ, গায়ক, গায়িকা ইত্যাদি একটির পর একটি করিয়া ললিতমোহনের বৈঠকখানা পূর্ণ করিল। এদিকে পিতৃসঞ্চিত অর্থরাশিও জলবৎ ঢেউ খেলিয়া তর তর করিয়া সাগরাভিমুখে ছটিয়া চলিতে লাগিল। তাহার জননী কাদিয়া কাটিয়া অনেক বুঝাইলেন, অনেক বলিলেন, কিন্তু সে তাহাতে কর্ণপাতও করিল না। একদিন ঘূর্ণিতলোচনে মাতৃসন্নিধানে আসিয়া বলিল, ম, এখনি আমাকে পঞ্চাশ টাকা দাও । মা বলিলেন, একটি পয়সাও আমার নেই। ললিতমোহন দ্বিতীয় বাক্যব্যয় না করিয়া একটা কুড়ল লইয়া জননীর হাতবাক্স চিরিয়া ফেলিয়া পঞ্চাশ টাকা লইয়া প্রস্থান করিল। তিনি দাড়াইয়া সমস্ত দেখিলেন, কিন্তু কিছুই বলিলেন না । - \రిఉ}