প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শরৎ সাহিত্য সংগ্রহ (সপ্তম সম্ভার).djvu/৮১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গৃহদাই অচলা কহিল, হোক রাজধানী, তাতে আমার লোভ নেই। কিন্তু তোমার ওপর আমার ভারি লোভ । শীগগির ছেড়ে দিচ্চিনে মৃণালদিদি । মৃণাল দুই বাহু বাড়াইয়া অচলাকে জড়াইয়া ধরিয়া বলিল, সতীনকে ঝাটা মেরে বিদায় না করে, ঘরে ধরে রাখতে চাও—এ তোমার কি রকম বুদ্ধি সেজদি ? অচলা আস্তে আস্তে বলিল, তোমার এই ঠাট্টাগুলো আমার ভাল লাগলো না ভাই । আচ্ছা এ-দেশে সবাই কি এই রকম করে তামাসা করে ? মৃণাল খিলখিল করিয়া হাসিয়া উঠিল। কহিল, না গো ঠানদি, করে না ! এ শুধু আমি করি, সবাই এ জিনিস পাবে কোথায় যে করবে ? অচলা কহিল, পেলেও আমরা মুখে আনতে পারিনে ভাই । আমাদের কলকাতার সমাজে অনেকে হয়ত ভাবতে পৰ্যন্ত পারে না যে, কোন ভদ্রমহিলা এসব মুখে উচ্চারণ করতে পারে । মৃণাল কিছুমাত্র লজ্জিত হইল না । বরঞ্চ জোর করিয়া অচলাকে আর একবার জড়াইয়া ধরিয়া বলিল, তোমাদের সহরের ক'জন ভদ্রমহিলা আমার মত এমন করে জড়িয়ে ধরতে পারে, বল ত সেজদি ? সবাই বুঝ সব কাজ পারে ? এই ত তোমাকে কতক্ষণই বা দেখেচি, এর মধ্যেই মনে হচ্ছে, আমার বোন ছিল না, একটি ছোট বোন পেলুম। আর এ শুধু কথার কথা নয়, সারাজীবন ধরে আমাকে এর প্রমাণ যোগাতে হবে—তা মনে রেখো। এখানে আর ঠাট্ৰা-তামাসা চলবে না । অচলা শিক্ষিতা মেয়ে । এই পল্লীগ্রামের বিরুদ্ধসমাজের মধ্যে তাহার ভবিষ্যৎজীবন যে কিভাবে কাটিবে, তাহা বাটতে পা দিয়াই সে বুঝিয়া লইয়াছিল। এ সুযোগ সে সহজে ছাড়িয়া দিল না। পরিহাসকে গাম্ভীর্ঘ্যে পরিণত করিয়া কহিল, মৃণালদিদি, সত্যই কি এর প্রমাণ তুমি সারা জীবন-ভোর যোগাতে পারবে ? মৃণাল বলিল, আমরা ত সহরের মহিলা মই ভাই—যোগাতে হবে বৈ কি ! যে সত্যি তোমাকে ছয়ে করে ফেললুম সে ত মরে গেলেও আর উন্টোতে পারব না। অচলা এ কথার আর অধিক নাড়াচাড়া না করিয়া অন্ত কথা পাড়িল ; হাসিয়া কহিল, শীগগির পালাবে না, তাও অমনি বল! মৃণাল হাসিয়া ফেলিয়া বলিল, বোকা পেয়ে বুঝি ক্রমাগত ফাস জড়াতে চাও সেজদি ? কিন্তু সে ত আগেই বলেচি ভাই, ভাল করে চার্জ বুঝিয়ে না দিয়ে পালাব না । - আচল মাথা নাড়িয়া বলিল, চার্জ নেবার আমার এক তিল আগ্রহ নেই। মৃণাল বলিল, সেইটে আমি করে দিয়ে তবে যাবে, কিন্তু বেশিদিন আমার ত বাড়ি ছেড়ে থাকবার জো নেই ভাই ! জান ত, কত বড় সংসারটি মাথার ওপর । - פאף ግቕ–» •