পাতা:শিখগুরু ও শিখজাতি.pdf/১৩০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্বাদশ অধ্যায় e': অভিপ্রায় জ্ঞাপন করিলেন। এদিকে এই সময়ের মধ্যে ইংরাজদের ফরাসীভীতি দূর হইয়াছিল, সুতরাং গবর্ণর জেনারেল রণজিতের সহিত হানসৰ্ত্তে সন্ধি করিতে কোনোক্রমে সম্মত হইলেন না, অধিকন্তু তিনি শতদ্রুর দক্ষিণতীরবর্তী শিখপ্রদেশ দাবী করিয়া রণজিংকে জানাইলেন --“ ইংরাজগবর্ণমেণ্ট মারাঠাদিগকে পরাজিত করিয়া তাহাদের উত্তরাধিকারী হইয়াছেন ; মারাঠাদের সহিত বিরোধকালে মহারাজই শতদ্ৰুনদী ইংরাজরাজ্যের সীমা বলিয়া নির্দেশ করিয়াছিলেন ; ইংরাজগবর্ণমেণ্ট শতদ্রুতীরের শিখনায়কদিগকে আশ্রয় দান করিয়াছেন, মহারাজ দক্ষিণ তীরে যে যে স্থান জয় করিয়াছেন ইংরাজগবর্ণমেণ্টকে সেগুলি ছাড়িয়া দিয়া দক্ষিণতীর হইতে সৈন্তনিবাস তুলিয়। লউন, ইংরাজদূতকে মহারাজ উপযুক্ত সম্মান প্রদর্শন করেন নাই, সন্ধির প্রস্তাব উপস্থাপিত হওয়ার পর রাজ্যবিস্তারের চেষ্টা করিয়া মহারাজ শিষ্টত লঙ্ঘন করিয়াছেন । ” ১০ই ডিসেম্বর তারিখে মেটকাফ সাহেব লাহোর নগরে মহারাজের সহিত দ্বিতীয় সাক্ষাৎকারুকালে ইংরাজগবর্ণমেণ্টের পূৰ্ব্বোক্ত অভিপ্রায় তাহাকে জ্ঞাপন করেন। বলা বাহুল্য গবর্ণর জেনারেলের প্রত্যুত্তর র্তাহগকে গভীর মনোবেদন প্রদান করিল তিনি বলিলেন--- * আমি জানিতাম ফরাসীদের ভয়ে ইংরাজগবর্ণমেণ্ট আমার সহিত বন্ধুত্ব-স্থাপনের অভিলাষ করিয়াছেন, এখন দেখিতেছি সেটা কথার কথা মাত্র, তাহারা আমারই রাজ্যবিস্তারে বাধাপ্রদানের জন্য চেষ্টত হইয়াছেন।” রণজিতের চির-পোষিত উচ্চাভিলাষ পরিপূরণের পথে প্রবল বাধা আসিয়া উপস্থিত হইল । ক্ষোভে, দুঃখে তিনি সন্ধি করিতে সম্মত হইলেন না, ইংরাজের সহিত সংগ্রামে প্রবৃত্ত হইবার আয়োজনে মনোনিবেশ করিলেন । গোবিন্দগড় খাদ্যে ও যুদ্ধোপকরণে