পাতা:শিখগুরু ও শিখজাতি.pdf/১৩২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ত্রয়োদশ অধ্যায় -- $ 0 (t মানবলীলা সংবরণ করিয়াছেন । আজিও ধনীর প্রাসাদ হইতে দরিদ্রের পর্ণকুটীর পর্য্যন্ত সৰ্ব্বত্র তাহার আলেখ্য দৃষ্ট হয় । রণজিতের শৈশব ও যৌবনকালের কোনো চিত্র পাওয়া যায় না । বোধকরি তাহার শিশুকালে ও যৌবনে পাঞ্জাবে চিত্রবিদ্যার তেমন আদর ছিল না । চিন্তা-জর্জরিত, ভগ্ন-হৃদয় বুদ্ধ রণজিতের প্রতিকৃতিই শিখদের আদরের সামগ্ৰী হইয়াছে । বীরবর রণজিৎ দৈহিক লাবণ্যে বঞ্চিত ছিলেন ; তাহার মুখমণ্ডলে প্রতিভার ছাপ না থাকিলে কোনো দর্শক তাহাকে দেখিয়া মুগ্ধ হইতেন না। শৈশবে ভীষণ বসন্তব্যাধি র্তাহার বাম চক্ষু নষ্ট করিয়া ফেলিয়াছিল। র্তাহার ধূসর-পিঙ্গল মুখ-চৰ্ম্মের উপর গভীর কাল দাগ পড়ায় স্বভাবকুংসিত-মুখশ্ৰী অধিকতর কুৎসিত হইয়াছিল । খৰ্ব্বাকৃতি রণজিতের সরল-ক্ষুদ্র নাসিকার অগ্রভাগ স্থল, পুরু অধর ও ওষ্ঠ সুদৃঢ়-দস্তপঙক্তি চাপিয়া রাথিয়াছিল এবং তাহার ধূসর শ্মশ্ররাজি জাকিয়া বাকিয়া প্রায় নাভিপৰ্যন্ত লম্বিত হইয়া মুখশ্ৰীতে গাম্ভীৰ্য্য দান করিয়াছিল । রণজিতের একমাত্র দক্ষিণচক্ষু সুবৃহৎ ও দীপ্তি-পূর্ণ ছিল ; যখন কোনোকারণে তিনি উত্তেজিত হইতেন তখন তাহার সেই জলজল চক্ষু হইতে যেন তেজ ও দৃঢ়তা ঠিকরিয়া পড়িত। তাহার হাসি লোকের মন ভুলাইতে পারিত । যুক্তিপূর্ণ সোজা কথায় অতি জটিল প্রশ্নের আশু মীমাংসা করিয়া দিয়া তিনি শ্রোতৃবৃন্দকে বিস্ময়াবিষ্ট করিতেন। বালকবয়সেই রণজিতের রণ-পাণ্ডিত্য, বুদ্ধিমত্তা, শাসনদক্ষতা ও মন্ত্রণা-কুশলতা শিখদিগকে মুগ্ধ করিয়াছিল। বার বৎসর বয়সে যখন তিনি পিতৃ-সম্পদের অধিকারী হইলেন তখন চারিদিক হইতে অনিশ্চিত বন্ধু, প্রতারক সহযোগী ও প্রকাশু শক্রগণ র্তাহাকে বেষ্টন করিল। সেই ভীষণ প্রতিকুল অবস্থার মধ্যে তিনি প্রধানতঃ আপনার ভূজবল ও বুদ্ধিমত্তাকে অবলম্বন করিয়া দাড়াইয়াছিলেন। তাহাকে কেহ কোনো