পাতা:শিখগুরু ও শিখজাতি.pdf/৪৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তৃতীয় অধ্যায় २१ ১৬৫৮–৯ খৃঃ অব্দে যখন সম্রাট সাজাহানের পুত্রেরা পৈতৃক সিংহাসন লইয়া কলহে প্রবৃত্ত ছিলেন, তখন গুরু হররায় দারার পক্ষ অবলম্বন করিলেন । যুদ্ধে দারা পরাজিত হইলেন । বিজয়ী অরংঞ্জীব হররায় ও তাছার পুত্রকে রাজদ্রোহিতার অপরাধে বন্দী করেন । পুত্রকে জামিন রাখিয়া হররায় মুক্তিলাভ করিয়াছিলেন । এইরূপ প্রকাশ, আরংজীব হররায়ের জ্যেষ্ঠপুত্র রামরায়কে উপযুক্ত সম্মান দেখাইয়া অল্পদিন মধ্যে মুক্তি দিয়াছিলেন । ১৬৬১ খৃঃ হররায় কৰ্ত্তারপুরে মৃত্যুমুখে পতিত হন । মৃত্যুর পূৰ্ব্বে তিনি তাহার কনিষ্ঠ পুত্র হরকিষণকে গুরুপদে বরণ করেন । এই সময়ে তাহার বয়স ছয় বৎসরমাত্র । হরকিষণ ృష్క్రి ' - 3 হরকিষণ গুরুপদ লাভ করিলেন, কিন্তু তাহার জ্যেষ্ঠ ভ্রাত রামরায়ু উক্ত পদের দাবী কিছুতেই ছাড়িতে চাহিলেন না । তিনি দাসীর গর্ভজাত পুত্র হইয়াও গুরুপদ লাভের আশায় বিবাদ চালাইতে লাগিলেন । বিবাদের কোন মীমাংসাই হইতেছে না দেখিয়া উভয় পক্ষ সম্রাট আরংজীবকে মধ্যস্থ মান্ত করেন । সম্রাট দুইজনকে দিল্লীনগরে আহবান করিলেন । এইরূপ প্রকাশ যে সম্রাট আরংজীব শিশু হুরকিষণের বুদ্ধিমত্তায় বিস্মিত হইয় তাহাকেই গুরুপদ দিয়াছিলেন । শিশু বাদসাহের বেগমদিগের মহলে প্রবেশ করিয়া সমস্ত বেগমদিগের মধ্য হইতে প্রধান মহিলাকে বাছিয়া বাহির করিয় তাহাকে যথাযোগ্য সম্মান দেখাইয়ছিলেন ।