পাতা:শিখগুরু ও শিখজাতি.pdf/৭৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


懿8 শিখগুরু ও শিখজাতি জিজ্ঞাসা করিলেন—“আপনি কি অভিপ্ৰায়ে এ দীনের কুটারে পদার্পণ করিয়াছেন বলুন, সাধ্যায়ত্ত হইলে আমি আপনার প্রার্থন পূর্ণ করিব।” গুরু উত্তর করিলেন--“আমার প্রার্থনা, তুমি আমার শিষ্যত্ব গ্রহণ কর।” বন্দ প্রফুল্লচিত্তে কহিলেন—“আমি আজ হইতে আপনার বন্দী অর্থাৎ দাস হইলাম।” এই দিন হইতে বন্দী শিখ-গুরু গোবিন্দের অনুচর হইলেন । বন্দার বীরত্ব গোবিন্দকে মোহিত করিয়াছিল। মৃত্যুর কয়েক দিন পূৰ্ব্বে তিনি তাহার এই বীরশিষ্ণুকে নিজসমীপে আহবান করিয়া র্তাহাকে বলিলেন—“আমার মৃত্যুর পরে তুমি আমার সম্প্রদায়ের চালক হইবে। তুমি বিখ্যাত যোদ্ধা হইবে। আমি আমার পিত। পিতামহ ও পুত্ৰগণের নিষ্ঠুর হত্যার প্রতিশোধ গ্রহণ করিয়া যাইতে পারিলাম না, তোমাকে তাহা গ্রহণ করিতে হইবে। তুমি মৃত্যুভয়ে কদাচ ভীত হইও না।” এই বলিয়া গুরু স্বীয় তৃণীর হইতে পাঁচটি শর লইয়া সেই শর কয়টি শিষ্ণের হস্তে প্রদান করিয়া আবার বলিলেন—“আমার এই আশীৰ্ব্বাদ গ্রহণ কর, যতদিন তোমার চরিত্ৰ নিৰ্ম্মল থাকিবে, ততদিন আমার আশীৰ্ব্বাদে বিপদ তোমাকে অভিভূত করিতে পারিবে না। আমার আদেশ অমান্ত করিলে অকালে তোমাকে মৃত্যুমুখে পতিত হইতে হইবে।” গুরুগোবিন্দের মৃত্যুর পরে তাহার সহচর শিখেরা ভগ্নোৎসাহ হইয়া পড়িল । তাহারা অনেকেই আসি ছাড়িয়া আবার লাঙ্গল ধরিল। পঞ্চনদ প্রদেশের শিখেরা শুরুর অভিপ্রায় জানিতে পারিয়া বন্দীকে তাহাদের নায়ক করিবার নিমিত্ত উৎসাহী হইল এবং তাহাকে অভ্যর্থনা করিবার নিমিত্ত একদল শিখ"দক্ষিণাত্যে গমন করিল।