পাতা:শিখগুরু ও শিখজাতি.pdf/৮৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শিখগুরু ও শিখঞ্জাতি وهوي পুত্রের নামে শাসনদণ্ড চালাইয়াছিলেন। কিন্তু তিনি তাহার ক্ষমতা অক্ষুণ্ণ রাখিতে পারিলেন না। ক্রমে পাঞ্জাব আদীনাবেগের হস্তগত হইল। আমেদ সাহ আবদালী সহজে ছাড়িবার পাত্র নহেন, তিনি পাঞ্জাব স্বীয় অধিকারে রাখিবার নিমিত্ত ১৭৫৫ খৃষ্টাব্দে সসৈন্তে উপনীত হইলেন। তাহার শিশুপুত্র তাইমুর, জেহান খাঁ নামক এক সর্দারের অধীনে, পঞ্চনদ প্রদেশের শাসনকৰ্ত্ত নিযুক্ত হইলেন। নাজিবুদ্দৌলা আফগানরাজের প্রতিনিধিরূপে দিল্লীশ্বরের দরবারে রহিলেন । নুতন শাসনকৰ্ত্ত সৰ্ব্বপ্রথমে শিখশক্তির উচ্ছেদসাধন ও আদীনাবেগকে দলনের নিমিত্ত চেষ্টিত হইলেন । সুত্রধর জস নামক এক শিখনায়ক রামরীগুনি দুর্গ অধিকার করিয়া তথায় শক্তিশালী হইয়া উঠিয়াfছলেন। আফগান-শাসনকৰ্ত্ত উক্ত দুর্গ আক্রমণ করিয়া ধ্বংস করিয়া ফেলিলেন । শিখের বিচ্ছিন্ন হইয়া পড়িল । আফগানদের দোর্দণ্ড-প্রতাপ দেখিয়া আদীনাবেগ ভীত হইয় পার্বত্য প্রদেশে পলায়ন করিলেন । তিনি তথায় থাকিয়া আফগানশাসনকৰ্ত্তার বিরুদ্ধে fশখদিগকে উত্তেজিত করিতে লাগিলেন । সৰ্ব্বত্রই শিখেরা জাগিয়া উঠিতেছিল । নবধৰ্ম্মবলে বলী বীৰ্য্যবান শিখের আবার লাহোরে সমবেত হইল । নুতন শাসনকৰ্ত্তার সমস্ত চেষ্টা ব্যর্থ করিয়া শিখেরা লাহোর নগরে আপনাদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠিত করিল । শিখ-নায়ক জসী সিংহের অধীনে বহুসংখ্যক সৈন্ত মিলিত হইল । মোগলদের টাকশালে তিনি খালসা সম্প্রদায়ের নামে টাকা ছাপাইতে আরম্ভ করিলেন । আদীনাবেগ শিশদিগের সহায়তালাভের চেষ্টা করিয়া বিফল মনোরথ হইলেন । রাজ্যলাভের চুরাশ। তাছাকে উন্মত্ত করিয়াছিল, তিনি এসময়ে শক্তিশালী মারাঠাদিগের সাহায্যপ্রার্থী হইলেন। ওদিকে দিল্লীতে দুরাণীরাজের প্রতিনিধি সম্রাটের শক্তি খৰ্ব্ব করিয়া স্বয়ং যথেচ্ছভাবে