পাতা:শুভদা (নাটক) - শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.pdf/৪৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কাতু। আমাদের আটঘাট-বেঁধে চলতে হয়। তোমাদের স্ত্রী আছে, ছেলেমেয়ে আছে! আত্মীয়বন্ধু-আছে, একবার পড়লে আবার উঠতে পারে। কিন্তু আমাদের আহাহা বলবার কেউ নেই সংসারে । না খেয়ে মরে গেলেও কেউ দেখবে তো নাই-ই, বরং ধিক দেবে। লোকে বলে যার কেউ নেই।--তার ভগবান আছেন । আমাদের সে ভরসা ও নেই! কাজেই আমাদের খুব সাবধানে দেখেশুনে সংসারে পা ফেলে চলতে হয়। টাকা দশটা তোমার স্ত্রীর হাতে দিও। তবু দুদিন সকলে পেট ভরে খেতে পাবে। নিজের কাছে কিছুতেই রেখোন । ER ? হারাণ । ( অন্যমনস্কভাবে ) - হঁ্যা--- কাতু। ( হারাণের হাত ধরিয়া) অনেক রাত হলো, আজ আর কোথাও যেওনা ; এইখানেই শুয়ে থাকে । মনের জ্বালায়। কতো কথা বলি । কিছু মনে করে না-আমারই মন চায় তোমায় ছেড়ে দেই ! হারাণ মুহূৰ্ত্তরে শ্মশান বৈরাগ্য ভুলিয়া গিয়া কাতুর বিছানাতেই শুইয়া •फुिण । হারাণের বাড়ীতে স্বামীর বাড়াভাতের সামনেই শুভদা আঁচল পাতিয়া মাটিতে শুইয়া আছে। দীপ দপ করিয়া তৈলহীন প্ৰদীপটি নিভিয়া গেল । সকালে দেখা গেলে শুভদার হাতের ওপর হারাণের হাত একটি, একটি করিয়া দশটি টাকা গুণিয়া দিতেছে। [ 81 ]