পাতা:শেষ প্রশ্ন.djvu/১১৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শেষ প্রশ্ন SS २ করাই যাহার স্বভাব, সেই আশুবাবুর পর্য্যন্ত মুখ শুষ্ক হইয়া উঠিল। ক্ষণেক পরে আগন্তুক ভদ্রব্যক্তিরা ঘরে ঢুকিয়া সকলেই আশ্চৰ্য্য হইলেন। কারণ এই মেয়েটির এখানে এভাবে দর্শন মিলিতে পারে তাহা তাহাদের কল্পনার অতীত। হরেন্দ্ৰ হাত তুলিয়া কমলকে নমস্কার করিয়া কহিল, ভাল আছেন ? অনেকদিন আপনাকে দেখিনি । অবিনাশ হাসিবার মত মুখভঙ্গী করিয়া একবার দক্ষিণে ও একবার বামে ঘাড় নাড়িলেন—তাহার কোন অর্থ-ই নাই। আর সোজা মানুষ অক্ষয় । সে সোজা পথে সোজা মতলবে কাঠের মত ক্ষণকাল সোজ দাড়াইয়া দুই চক্ষে অবজ্ঞা ও বিরক্তি বর্ষণ করিয়ু একখানা চেয়ার টানিয়া বসিয়া পড়িল। আগুবাবুকে জিজ্ঞাসা করিল, তামার আর্টিকৃেলট পড়লেন ? বলিয়াই তাহার নজরে পড়িল সেই লেখাটা মাটিতে লুটাইতেছে। নিজেই তুলিতে যাইতেছিল, হরেন্দ্র বাধা দিয়া কহিল, থাকুন। অক্ষয়বাবু, বঁট দেবার সময় চাকরটা ফেলে দেবে অখন।, তাহার হাতটা ঠেলিয়া দিয়া অক্ষয় কাগজগুলা কুড়াইয়া আনিলেন। ই, পড়লাম, বলিয়া আশুবাবু উঠিয়া বসিলেন। চাহিয়া দেখিলেন, অজিত ও-ধারের সোফায় বসিয়া সেই দিনের খবরের কাগজটায় চোখ বুলাইতে সুরু করিয়াছে। অবিনাশ কিছু একটা বলিতে পাইয়া নিশ্বাস ফেলিয়া বাচিল, কহিল আমিও অক্ষয়ের লেখাটা আগাগোড়া মন দিয়ে পড়েচি, অনগুবাবু। ওর অধিকাংশই সত্য, এবং মূল্যবান। দেশের সামাজিক ব্যবস্থার যদি সংস্কার করতেই হয় তো সু-পরিচিত এবং সুপ্রতিষ্ঠিত,পথেই তাদের চালনা করা কর্তব্য । ইয়োরোপের সংস্পর্শে আমরা অনেক ভাল জিনিস পেয়েছি, নিজেদের বহু ক্ৰটি স্বামাদের চোখে পড়েচে, মানি, কিন্তু আমাদের সংস্কার আমাদের নিজের পথেই হওয়া চাই পরের অনুকরণের মধ্যে কল্যাণ নেই। ভারতীয় নারীর