পাতা:শেষ প্রশ্ন.djvu/২৪৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শেষ প্রশ্ন । ૨88 এখানে খাবার কষ্ট যদি বা হয়, অন্তের মত অসহ্য হবেনা এইটুকুই আমার ভরসা। . হরেন্দ্র খুসি হইয়া উত্তর দিল, আমাদের খাবার ব্যবস্থা যা দেখে এসেছেন তাই বটে। সত্যিই আমরা খুব কষ্ট করে থাকি । কিন্তু থাকেন কেন ? অজিতবাবু বড়লোক, আপনার নিজের অবস্থাও অস্বচ্ছল নয়,—কষ্ট পাওয়ার তো কারণ নেই। হরেন্দ্ৰ কহিল, কারণ না থাকৃ প্রয়োজন আছে । আমার বিশ্বাস এ আপনিও বোঝেন বলে নিজের সম্বন্ধেও এম্‌নি ব্যবস্থাই করে রেখেছেন। . অথচ, বাইরে থেকে কেউ যদি আশ্চৰ্য্য হয়ে প্রশ্ন করে বসে, তাকেই কি এর হেতু দিতে পারেন ? কমল বলিল, বাইরের লোককে না পারি, ভিতরের লোককৈ দিতে পারবো। আমি” সত্যিই বড় দরিদ্র, নিজেকে ভরণ-পোষণ করবার যতটুকু শক্তি আছে তাতে এর বেশি চলেনা। বাবা আমাকে দিয়ে যেতে পারেননি কিছুই, কিন্তু পরের অনুগ্রহ থেকে মুক্তি পাবার এই বীজমন্ত্রটুকু দান করে গিয়েছিলেন। হরেন্দ্র তাহার মুখের প্রতি নিঃশব্দে চাহিয়া রহিল। এই বিদেশে কমল যে কিরূপ নিরুপায় তাহা সে জানিত । শুধু অর্থের জন্যই নয়,— সমাজ, সন্মান সহানুভূতি কোন দিক দিয়াই তাহার তাকাইবার কিছু নাই। কিন্তু, এ সত্যও সে স্মরণ না করিয়া পালিন যে এতবড় নিঃসহায়তাও এই রমণীকে লেশমাত্র দুর্বল করিতে পুরে নাই। আজও সে ভিক্ষা: চাহেনা—ভিক্ষা দেয়। যে শিবনাথ তাহার এতবড় দুৰ্গতির মূল তাহাকেও দান করিবার সম্বল তাহার শেষ হয় নাই এবং বোধকরি সাহস ও সাস্বনা দিবার অভিপ্রায়েই কহিল, আপনার সঙ্গে আমি তর্ক করচিনে, কমল, কিন্তু এ ছাড়া আর