প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:শ্রীকান্ত (তৃতীয় পর্ব).djvu/২৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


念念哆 व्यिकिक्लमाकी রতনের মুখ গর্বে উজ্জ্বল হইয়া উঠিল এবং রাজলক্ষ্মী অস্পৃশ্যের প্রতিগ্রহের দায় হইতে পরিত্রাণ BBD DDB BDD DBDS gBB BB BBDS D DDD DDB BBS BDD DD DD DB BBDDS এই বলিয়া সে হাসিল। মধু ডোম কৃতজ্ঞতায় পরিপূর্ণ হইয়া হাতজোড় করিয়া কহিল, হুজুর পহর রেতের মধ্যেই লগন, একবার যদি পায়ের খুলো দেন। এই বলিয়া সে একবার আমার ও একবার রাজলক্ষ্মীর মুখের প্রতি করুশ চক্ষে চাহিয়া রহিল। আমি সম্মত হইলাম, রাজলক্ষ্মী নিজেও একটু হাসিয়া সানাইয়ের শব্দটা আন্দাজ করিয়া বলিল, ওই বুঝি তোমার বাড়ি মধুর আচ্ছা যদি সময় পাই ত আমিও গিয়ে একবার দেখে আসৰ। রতনের প্রতি চাহিয়া কহিল, বড় তোরঙ্গটা খুলে দেখ ত রে, আমার নতুন শাড়িগুলো আনা হয়েছে কি না। যা মেয়েটিকে একখানা দিয়ে আয়। মিষ্টি বুঝি এদেশে কিছু পাওয়া যায় না? বাতাসা মেলে? আচ্ছা, তাই বেশ। অমনি তাও কিছু কিনে দিয়ে আসিস রতন। ই মধু তোমার মেয়ের বয়স কত ? পাত্তরের বাড়ি কোথায়? লোক কতগুলি খাবে? এ গায়ে ক ঘর তোমরা আছ? জমিদারগৃহিণীর একসঙ্গে এতগুলি প্রশ্নের উত্তরে মধুসসন্ত্রমে এবং সবিনয়ে যাহা কহিল তাহাতে বুঝা গেল তাহার কন্যার বয়স বছর-নয়েকের মধ্যেই, পত্র যুব-পুরুষ—ত্রিশ-চল্লিশের বেশি হইবে না—বাড়ি ক্রোশ-পাঁচেক উত্তরে কি একটা গ্রামে—সে একটা তাহদের বড় সমাজ, সেখানে জাতীয় ব্যবসা কেহ করে না—সকলেরই চাব-বাস পেশা—মেয়ে বেশ সুখেই থাকিবে, তবে ভয় শুধু এই রাত্রিটার জন্য। কারণ বরযাত্রীর সংখ্যা কত হইবে এবং তাহার কোথায় কি ফ্যাসাদ বাধাইয়া দিবে, তাহা আজ প্রভাত না হওয়া পর্যন্ত কোনমতেই অনুমান করিবার জো নাই। তাহারা সকলেই সমৃদ্ধ ব্যক্তি ; কি করিয়া যে মান-মর্যাদা বজায় রাখিয়া শুভকর্ম সম্পন্ন হইবে এই ভয়েই মধু কাটা হইয়া আছে। এই সকল সবিস্তারে নিবেদন করিয়া সে পরিশেষে সকাতরে জানাইল যে, তাহার চিড়া গুড় এবং দধি সংগ্ৰহ হইয়াছে, এমন কি শেষকালে খান-দুই করিয়া বড় বাতাসাও পাতে দিতে পরিবে ; কিন্তু তথাপি যদি কোন গোলযোগ হয় ত তাহদের রক্ষা করিতে হুইবে । রাজলক্ষ্মী সকৌতুকে ভরসা দিয়া কহিল, গোলযোগ কিছু হবে না মধু, তোমার মেয়ের বিয়ে নির্বিঘ্নে হবে, আমি আশীৰ্বাদ করচি। খাবার জিনিস এত জোগাড় করেচ, তোমার বেয়াইয়ের দল খেয়ে খুশি হয়ে ৰাড়ি যাবে। মধু ভূমিষ্ঠ প্রশাম করিয়া সঙ্গের লোক দুইটিকে লইয়া প্রস্থান করিল। কিন্তু তাহার মুখ দেখিয়া মনে হইল, এই আশীর্বচলের উপর বরাত দিয়া সে বিশেষ কোন সাক্ষন লাভ করিল না ; আক্ত রান্ত্রির জন্য কন্যার পিতার মনের মধ্যে যথেষ্ট উদ্বেগ জাগিয়া রহিল। শুভকর্মেপায়ের ধূলা দিব বলিয়া মধুকে আশা দিয়াছিলাম, কিন্তু সত্যসত্যই যাইতে হইবে এরূপ সম্ভাষনা বোধ করি আমাদের কাহারও মনে ছিল না। সন্ধ্যার কিছু পরে প্রদীপের সম্মুখে বসিয়া রাজলক্ষ্মী তাহার আয়-ব্যয়ের একটা খসড়া পড়িয়া শুনাইতেছিল আমি বিছানায় শুইয়া মূর্তি নেৰে কতক বা শুনিতেছিলাম, কতক বা শুনিতেছিলাম না, কিন্তু অদূরে বিবাহ বাটীর কলরোল কিছুক্ষণ হইতে যেন কিঞ্চিৎ অসাধারণ রকমের প্রখর হইয়া কালে বাজিতেছিল। সহসা রাজলক্ষ্মী মুখ তুলিয়া সহস্যে কহিল, ডোমের বাড়ির বিয়ে, মারামারি এর একটা অঙ্গ নয় ত? বসিলাম, উচুজাতের নকল যদি করে থাকেত বিচিত্র নয়। সে-সব কথা তোমার মনে আছে ত? DDD DBBS BBB BBBDD DD DB BDD BBB BB BDB BBD BDDS DDBBS C CTTSBBB BBB BBB BBBB BBB BBS BB BBSB BB BBBS gg u BBB BB BB BB BBDD DB BB BB BBB B BBBBB BBB BB gttDD BBB L BB BB BBBS BB BBBB BD BBBB BBB BBB BS BBB BDD DS SDD DDD DD GBDDDD BB BBB BBS BBBB BB BM TBB BB BBBB CT DB BYS DYS GBBM MBB DDB D DBBDSDBB B D DB DS CDD DDDD DDDD DBB BBB BBBS BBBB BBBB BBBS DD DDD