পাতা:শ্রীমদ্‌ভগবদ্‌গীতা-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/২৪০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চতুর্থ অধ্যায়। ఫిఫ్చి3 ভাষ্যকারের বলেন, যে এ কথা এখানে বলিবার কারণ এই যে আমাতে ভক্তিবাদ এই নূতন প্রচারিভ হইতেছে না। পূৰ্ব্বেও অনেকে ঈদৃশ জ্ঞানতপের দ্বারা মোক্ষলাভ করিয়াছেন। তাঁহাই বটে, কিন্তু বেশীর ভাগ এইটুকু বুঝা কৰ্ত্তব্য যে যাহারা আদর্শকৰ্ম্মীর কৰ্ম্মের মৰ্ম্ম বুঝিয়া কৰ্ম্ম করিয়াছেন, তাহাদেরই কথা হইতেছে। পরবর্তী পঞ্চদশ শ্লোক পাঠ করিলেই ইহা বুঝা যাইবে । ইহা বুঝিতে ন পারিলে কৰ্ম্মযোগের সঙ্গে এই সকল কথার কোনও সম্বন্ধ দেখিতে পাওয়া যাইবে না । নিষ্কাম কৰ্ম্মের পক্ষে রাগভয়ক্রোধ থাকিবে না, ঈশ্বরে অভেদ ssta orfosco, esas esta s escos (Spiritual culture y দ্বার চরিত্র বিশুদ্ধীকৃত হইবে । ইহা না হইলে কৰ্ম্ম নিষ্কাম হষ্টবে না । সকলেই নিষ্কামকৰ্ম্মী হইতে পারে না। যাহার। সকাম কৰ্ম্ম করে, তাহীদের কৰ্ম্মের কি কোনও ফল নাই ? ঈশ্বর সকল কৰ্ম্মের ফলবিধাতা। ইহা পরবর্তী দুই শ্লোকে কথিত হইতেছে। যে যথা মাং প্ৰপদ্যন্তে তাংস্তথৈব ভজাম্যহম । মম বভূৰ্ণসুবর্তন্তে মনুষ্যাঃ পার্থ সৰ্ব্বশঃ ॥ ১১ ॥ ষে আমাকে যে ভাবে উপাসনা করে, আমি তাহাকে সেই ভাবেই তুষ্ট করি । মনুষ্য সৰ্ব্ব প্রকারে আমার পথের অনুবৰ্ত্তা হয় । অগ্রে প্রথম চরণ যুঝা যাউক । অৰ্জুন বলিতে পারেন, “প্রভো! আসল কথাটা কি, তাত এখনও বুঝাও নাই । নিষ্কাম কৰ্ম্মেই তোমাকে পাইব, আর সকাম কৰ্ম্মে কিছু পাইষ না কি ?