পাতা:শ্রীমদ্‌ভগবদ্‌গীতা-বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/২৪৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ఇలwు শ্ৰীমদ্ভগবদ্গীত । অধ্যায়ে ঋষিবাক্য আছে, “পাতিত্যজনক কুক্রিয়াসক্ত, দাম্ভিক ব্ৰাহ্মণ প্রাজ্ঞ হইলেও শূদ্রসদৃশ হয়, আর যে শূদ্র সত্য, দম, ও ধৰ্ম্মে সতত অকুরক্ত তাহাকে আমি ব্রাহ্মণ বিবেচনা করি । কারণ ব্যবহারেই ব্ৰাহ্মণ হয় ।” পুনশ্চ বনপর্কে অজগর পৰ্ব্বাধ্যায়ে ১৮• অধ্যায়ে রাজর্ধি নহব বলিতেছেন, “বেদমূলক সত্য, দান ক্ষমা, আনৃশংস্ত, অহিংস ও করুণ। শূদ্রেও লক্ষিত হইতেছে। যদ্যপি সত্যাদি ব্রাহ্মণধৰ্ম্ম শূদেও লক্ষিত হইল, তবে শূদ্রও ব্রাহ্মণ হইতে পারে । তদুত্তরে যুধিষ্ঠির বলিতেছেন, “অনেক শূদ্রে ব্রাহ্মণলক্ষণ ও অনেক দ্বিজাতিতেও শূদ্রলক্ষণ লক্ষিত হইয় থাকে, অতএব শূদ্রবংশু হুইলেই যে শূদ্র হয়, এবং ব্রাহ্মণবংশু হইলেই যে ব্রাহ্মণ হয়, এরূপ নহে । কিন্তু যে সকল ব্যক্তিতে খৈদিক ব্যবহার লক্ষিত হয়, তাহারাই ব্রাহ্মণ, এবং যে সকল ব্যক্তিতে লক্ষিত না হয়, তাহারাই শূদ্র ।” কিন্তু হইতেছিল, নিষ্কাম ও সকাম কৰ্ম্মের কথা, কন্মের ফলকামনার কথা,—চাতুৰ্ব্বণ্যের কথা আসিল কেন ? কথাটা বলা হইয়াছে যে, কেহ ইহ কালে আশুলভ্য ফলের কামনায় দেবাদির যজন করে, কেহ বা নিষ্কাম কৰ্ম্ম করিয়া থাকে । লোকের মধ্যে এরূপ বিসদৃশ আচরণ দেখা যায় কেন ? তাহদিগেয় প্রকৃতিভেদবশতঃ । এই প্রকৃতিভেদই চাতুৰ্ব্বর্ণ্য বা বর্ণভেদ । কিন্তু এই বর্ণভেদ কেন ? ঈশ্বরে ছা । ঈশ্বর ইহ। করিয়াছেন । তবে ঈশ্বর কি কৰ্ম্ম করেম ? করেন বৈ কি ? কিন্তু এরূপ কৰ্ম্ম করিয়াও তিনি মুক"। । কেন না তিনি অব্যয় । তিনি যদি অব্যয়, তবে তিনি কৰ্ম্মফলের অধীন হইতে পারেন ন—র্তাহার সুখ দুঃখ হ্রাস বৃদ্ধি নাই। যদি তিনি ফলেৱ