পাতা:সদগুণ ও বীর্য্যের ইতিহাস.djvu/১৮০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


[ * ११ ] এক গাজর উপটৌকন দিল । বাদশাহ তাহার সারল্যেতে সন্তুষ্ট হইয় তাহাকে এক সহস্র টাকা পারিতোষিক দিতে আজ্ঞা করিলেন । এক জন অমাত্য এইমত ক্ষুদ্র বস্তুর এইমত পারিতোষিক দেখিয়া উত্তম এক অশ্ব ক্রয় করিয়া অধিক পত্ৰ রিতোষিকের লোভে বাদশাহকে উপটৌকন দি ল। বাদশাহ তাহার অভিপ্রায় বুঝিয় তাহা কে সেই গাজর দিয়া কহিলেন যে মহাশয় হা জার টাকার গাজর লাও ৷ ৭৫ সেকন্দর শাহ । সেকন্দয় শাহের দরবারে অতিবিখ্যাত অথচ দরিদু এক জন পণ্ডিত ছিলেন তিনি এক সময়ে টাকার নিমিত্তে প্রচুর ক্লেশ পাইয়া বাদশাহের অনুগ্রহ প্রার্থনা করিলেন। সেকন্দর শাহ তৎ ক্ষণাৎ তাহার যত ইচ্ছা খাজাঞ্চীর নিকটহইতে তত লইতে হুকুম দিলেন । তিনি অবিলম্বে খাজা থীর সমীপে গিয়া দশ সহস্র টাকা চাহিলেন। কোষাধ্যক্ষ তাহার এমত অধিক প্রার্থনাতে আশ্চ র্য্য বোধ করিয়া কহিলেন যে বাদশাহের জেল বানী না শুনিয়া অামি এত টাক) দিতে পারি না । সেকন্দর শাহ তাহার দরখাস্ত মনোযোগপ বর্বক শ্ৰৱণ করিয়া কহিলেন যে তাহাকে এই