পাতা:সিক্ত সিঁথি দুরন্ত শ্রাবণ.pdf/৫৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রোদের দোলন জু’ চোখে রোদের দোল্‌না, ছুঁয়ে যাও ফিরে ফিরে যাও যতটা বিদ্যুৎ দ্রুত চলে আসি প্রতি রোম কুপে বৃক্ষের ওপারে কীর্ণ প্রতীক্ষার মতন আকাশ বারোটি নীলাভ চোখ সাক্ষ্য দেয় নিবিড় ডায়ালে । যা ভাবা যায় না আমি নখে নখে নিদাগ ইস্পাতে ঈষৎ রক্তের দাগ তুলে নিয়ে শিশুর মুখের মতো কাচে গভীর মায়াবী রাতে ব্যক্তিগত বীক্ষণ আগারে অত্যন্ত নির্জনভাবে চলে আসি—তুলনাত্মক নিরীক্ষায় । যায় দোলন। সরে যায়—মুহূর্তেই সরে যায়—দূরে. ছায়ার বুকের থেকে উৎসারিত রোদের ইশারা। নিজেরই দু'হাতে মুখ হাতড়ে ভাবি ; এ কার চেহারা ! তবু কি মিলিপ্ত শান্ত দিন কাটে নিকট বন্দরে ॥ আটচল্লিশ