পাতা:সিরাজদ্দৌলা - অক্ষয়কুমার মৈত্রেয়.pdf/১০২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
৮৮
সিরাজদ্দৌলা।

হইবেন, তাঁহারাই বলিবেন যে, সিরাজ যে কেবল অন্যায় কৌশলে পিঞ্জরাবব্ধ বনশাৰ্দলের ন্যায় নৃশংসভাবে নিহত হইয়াছেন, তাহাই নহে;—তাহার নাম, তাহার স্মৃতি, তাহার ইতিহাসও কত অন্যায় আক্রমণে চুর্ণবিচূর্ণ হইয়া গিয়াছে! বাঙ্গালী তাহার উপর যে জন্য হস্ত হইয়াছিলেন, তাহার একটির মূল ইন্দ্রিয়-বিকার, অপরটির মূল অর্থপিপাসা। প্রথমটির আলোচনা হইয়াছে; দ্বিতীয়টিরও আলোচনা করা আবশ্যক।

 মুর্শিদাবাদের অনতিদূরেই মতিঝিল। মতিঝিলের পূর্ব্ব সৌভাগ্য এখন তিরোহিত হইয়া গিয়াছে। এখন মতিঝিল কেবল কণ্টক- বনে বেষ্টিত। কিন্তু বাঙ্গালার ইতিহাস হইতে মতিঝিলের নাম বিলুপ্ত হইবার সম্ভাবনা নাই। ইংরাজ মহিলা বিবি কিন্ডারলি, ১৭৬৬ খ্রষ্টাব্দে মতিঝিলের রমণীয় স্থান পরিদর্শন করিয়া, বিলাতে যে পত্র লিখিয়াছিলেন, সে পত্রখানির কিয়দংশ এখন এ দেশেও প্রচারিত হইয়াছে। মূলপত্রখানি ইংলণ্ডের “বৃটিশ মিউজিয়মে সযত্নে রক্ষিত হইয়া আসিতেছে। এই মতিঝিলের রাজপ্রাসাদ নির্মাণ করিতে কত অর্থই না ব্যয়িত হইয়াছিল! চিরদিনের আনন্দকানন সাজাইবার জন্য কক্ষে কক্ষে কত বহুমুল্য বিলাসদ্রব্যই না পুঞ্জীকৃত হইয়াছিল। কিন্তু কেহ কি স্বপ্নেও জানিত যে, কালক্রমে তাহা ইংরাজের বাসভবনে পরিণত হইয়া অবশেষে জীর্ণস্তুপে রূপান্তরিত হইবে? এই প্রাসাদের কক্ষে কক্ষে ভ্রমণ করিবার সময়ে, ইংরাজ-মহিলা বিবি কিডারলির

 * Calcutta Review. No.-CXC.