পাতা:সিরাজদ্দৌলা - অক্ষয়কুমার মৈত্রেয়.pdf/১৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করার সময় সমস্যা ছিল।


মুসলমান। সেকশ~ SALALA AAMLSS S ALSL ATL LSLE LeT AT LL LLL LLSLLLLLSLLLLLL kকেহই বাধা দিলে-হাসগত অতীত কাহিনীতে পৰ্য্যবসিত হইয়াছে। এ সম॥ ১ —। যে সময়ের লোক, সে সময় এখন বহুদূরে সরিয়া পড়িয়ছে। এক সময়ে এ দেশে মুসলমানের নামগন্ধ ছিল না। হিন্দুস্থান কেবল হিন্দু অধিবাসীর শঙ্খ ঘণ্টারবে প্রতিশব্দিত হইত “। কিন্তু সে বহুদিনের কথা। সেকালের সকল চিত্রই এত পুরাতন, এত জরাজীর্ণ, এত অস্পষ্ট হইয়া উঠিয়াছে যে, এখন আর ভাল করিয়া তাহার সৌন্দৰ্য্য বিচার করিবার উপায় নাই। বহুদিন হইতে এ দেশ হিন্দু মুসলমানের জন্মভূমি বলিয়া পরিচিত হইয়াছে; গ্রামে গ্রামে, নগরে নগরে, বহুদিন ঠাইতে হিন্দু মুসলমান বাহুতে বাহুতে মিলিত হইয়া জীবন-সংগ্রামে জন্মভূমির রণপতাকা বহন করিতেছে। সিরাজদ্দৌলার সময় হিন্দু মুসলমানের মধ্যে ধৰ্ম্মগত পার্থক্য ছিল; কিন্তু ক্ষমতাগত, পদ গৌরবগত কোনই পার্থক্য ছিল না। মুসলমানের পরিচ্ছদ, মুসলমানের শিষ্টাচার, মুসলমানের প্রয়োজনাতীত-সৌজন্য-পরিপ্লুত গ্ৰন্থ-বিন্যস্ত শ্রুতিসুমধুর সুমার্জিত যাবনিক ভাষা এবং পদবিজ্ঞাপক যাবনিক উপাধি গৌরবের সঙ্গে হিন্দু-মুসলমানে সমভাবে ব্যবহার করিতেন। দিল্লীর বাদশাহ নামমাত্র বাদশাহ; বাঙ্গালার নবাবই বাঙ্গালাদেশের প্রকৃত “মা বাপ" হইয়া উঠিয়াছিলেন। সেই নবাবের দরবারে হিন্দু-মুসলমানের কোনরূপ আসনগত পার্থক্য বা ক্ষমতাগত তারতম্য ছিল না। বরং অনেকাংশে হিন্দুদিগেরই বিশেষ প্ৰাধান্য জন্মিয়াছিল। বিলাস-লোলুপ মুসলমান ওমরাহগণ আহার বিহার লইয়াই সমধিক ব্যস্ত থাকিতেন; কৰ্ম্মকুশল হিন্দু অধিবাসিগণ, কেহ রাজা কেহ মন্ত্রী,