পাতা:সিরাজদ্দৌলা - অক্ষয়কুমার মৈত্রেয়.pdf/৩৬১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
৩৪৭
জবানবন্ধীর শেষ।

বড়ই ভুল বুঝিতেছেন। সেনাদলের এখনও বিশ্বাস আছে যে তাহারা নিশ্চয়ই জয়লাভ করিবে। শত্রুর সম্মুখে আসিয়া থতমত খাইয়া বসিয়া পড়িলে, তাহারা অবসন্ন হইয়া পড়িবে; কিছুতেই আর উত্তেজিত করা যাইবে না। মসীয় লা অবসর পাইলেই নবাবশিবিরে মিলিত হইবেন;—তখন নবাবের বাহুবলও বাড়িবে, মন্ত্রণাও উৎসাহলাভ করিবে। তাহারা আমাদিগকে বেষ্টন করিয়া কলিকাতায় পলায়নের পথ অবরোধ করিবে। আপনারা এখন যাহা দেখিতে পাইতেছেন না এমন কত নূতন বিপদে পড়িয়া বিনাযুদ্ধেই হয়ত পরাজিত হইবেন। আসুন এখনই অগ্রসর হই, নচেৎ এখনই পলায়ন করি,—যেখানে আছি, এখানে বসিয়া থাকা অসম্ভব।” ছয়জন সেনানায়ক এই মত পোষণ করিলেন। তাঁহাদের কথা কাজে লাগিল না; ক্লাইবের মতই প্রবল হইল; যুদ্ধযাত্রা স্থগিত রহিল![১]

 মহাসভায় সাক্ষ্য দিবার সময়ে ক্লাইব বলিয়া গিয়াছেন যে, ‘কেবল মেজর কুট এবং কাপ্তান গ্রান্ট ভিন্ন আর আর সকলেই যুদ্ধের বিরুদ্ধে মত প্রকাশ করিয়াছিলেন; তাঁহাদের কথা শুনিতে হইলে কোম্পানি বাহাদুরের সর্ব্বনাশ হইত;—আমি সেই জন্যই তাহা অবহেলা করিয়াছিলাম।’[২]

 ক্লাইব যে নিজেই সর্ব্বাগ্রে যুদ্ধের বিরুদ্ধ মত প্রকাশ করিয়া অন্যান্য সেনানায়কদিগের মত প্রকাশের সহায়তা করিয়াছিলেন, তাঁহার জবান-

  1. Ibid
  2. His Lordship observed, this was the only Council of war that he ever held and if he had abided by that Council, it would have been the ruin of the East India Company. —Clive's Evidence.