পাতা:সিরাজদ্দৌলা - অক্ষয়কুমার মৈত্রেয়.pdf/৩৭৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
৩৬৪
সিরাজদ্দৌলা।

 বৃহ্মান্তরালে লুকাইয়া থাকিয়াও ক্লাইবের আশঙ্কা দূর হইল না। নবাব সেনার ব্যুহ রচনায় এবং সমরকৌশলে তাঁহার অন্তরাত্মা কাঁপিয়া উঠিয়াছিল; তিনি উমিচাঁদকে ভর্ৎসনা করিয়া বলিতে আরম্ভ করিলেন,—“তোমাদিগকে বিশ্বাস করিয়া বড়ই কুকর্ম্ম করিয়াছি। তোমাদের সঙ্গে কথা ছিল যে, একটা যৎসামান্য যুদ্ধাভিনয় হইলেই মনস্কাম পূর্ণ হইবে; সিরাজসেনা যুদ্ধক্ষেত্রে বাহুবল প্রদর্শন করিবে না। এখন যে তাহার সকল কথাই বিপরীত হইতেছে?”[১] উমিচাঁদকে বিনীতভাবে নিবেদন করিলেন যে, “যাহারা যুদ্ধ করিতেছে তাহারা মীরমদন এবং মোহনলালের সেনাদল; তাহারাই কেবল প্রভুভক্ত। তাহাদিগকে কায়ক্লেশে পরাজয় করিতে পারিলেই হয়, অন্যান্য সেনানায়কগণ কেহই অস্ত্র চালনা করিবেন না।”[২]

 মীরমদন ধীরে ধীরে সম্মুখে অগ্রসর হইয়া বিপুল বিক্রমে গোলা চালনা করিতে লাগিলেন। সেই সময়ে মীরজাফরের চক্রব্যুহ যদি আর একটু অগ্রসর হইয়া কামানে অগ্নিসংযোগ করিত, তাহা হইলে আর রক্ষা ছিল না![৩] কিন্তু মীরজাফর, ইয়ার লতিফ, রায়দুর্ল্লভ যেখানে সেনাসমাবেশ করিয়াছিলেন সেই খানেই চিত্রার্পিতের ন্যায় দাঁড়াইয়া

  1. “সাবেদজঙ্গনে (ক্লাইব) আমীনচাঁদসে বাদগুমান্ হো কর, গোসা ফরমায়া, অওর কহা কে এসাহি ওয়াদা থা কে খাফিফ্ লঢ়াইমে বদরায় দিলি হাসিল্ হো যায় গা, অওর শাহী ফৌজভি সিরাজুদ্দৌলাসে মনহেরেফ্ হেয়; ওয়া সব তেরি বাতেঁ বরখেলাফ্ পায়ি জাতি হেঁয়!”-মুতক্ষরীণ (অনুবাদ)।
  2. Stewart's History of Bengal,
  3. As soon as their rear was out of the camp, failing in their plan to surround us, they halted. —Ive's Journal,