পাতা:সিরাজদ্দৌলা - অক্ষয়কুমার মৈত্রেয়.pdf/৩৯৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।
৩৭৯
ক্লাইবের মুর্শিদাবাদ প্রবেশ।

সিপাহী সমভিব্যাহারে ইংরাজ-সেনাপতি মসুরগঞ্জে শুভাগমন করিলেন। ক্লাইব বলিয়া গিয়াছেন যে, “সে দিন যত লোক রাজপথপার্শ্বে সমবেত হইয়াছিল, তাহারা ইংরাজনিধনে কৃতসংকল্প হইলে, কেবল লাঠি সোটা এবং লোষ্ট্রনিক্ষেপেই তৎকার্যসাধন করিতে পারিত!”[১]

 মোগল রাজধানীর “সুবাসিত” প্রাসাদ কক্ষে পদার্পণ করিয়াও ক্লাইবের দুশ্চিন্তা দূর হইল না;—কেহ কেহ বলিতে লাগিল যে “তাঁহাকে গোপনে হত্যা করিবার জন্য ষড়যন্ত্র আরম্ভ হইয়াছে।”[২] এরূপ জনরবে বিশ্বাস স্থাপন করিবার কারণেরও অভাব ছিল না! সেকালে গুপ্তহত্যা সকল দেশেই অল্পাধিক পরিমাণে প্রচলিত ছিল, তাহাতে আবার সিরাজদ্দৌলা ধরা না পড়ায় অনেকরূপ সন্দেহ ঘনীভূত হইয়া উঠিতেছিল। কে শত্রু কে মিত্র,—কে রাষ্ট্রবিপ্লবে আন্তরিক হর্ষযুক্ত, কে ক্লাইবের সর্ব্বনাশসাধনের জন্য সুযোগ অনুসন্ধান করিতেছে,—তাহার কিছু স্থিরতা নাই। এরূপ অবস্থায় ক্লাইব এবং মীরজাফর উভয়ে উভয়ের কণ্ঠলগ্ন হইয়া আত্মপক্ষ সবল করিবার আয়োজন করিতে লাগিলেন।

 ক্লাইব ক্ষণমাত্র কালবিলম্ব না করিয়া পাত্রমিত্রগণের সাক্ষাতে দরবারকক্ষে মীরজাফরের নিকটবর্ত্তী হইলেন, এবং তাঁহাকে মস্‌নদে বসাইয়া

  1. He entered the city with 200 Europeans, and 500 Sepoys,—the inhabitants, who were spectators upon that occasion, must have amounted to some hundred thousands; and If they had had an inclination to have destroyed the Europeans, they could have done it with sticks and stones.—Clive's Evidence.
  2. Orme, ii. 180.