পাতা:১৫১৩ সাল.pdf/৭৫

এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
৬২
১৫১৩ সাল।

দেখিয়া অবশেষে ধনাগারে গেলাম। দেখি উহায় দারওয়াজা বেশ দৃঢ়ভাবে প্রস্তুত। বুঝিলাম, স্বাভাবিক অবস্থায় উহা খোলা একরূপ অসম্ভব; কিন্তু আমাদের দুই চারিটা পদাঘাতে উহা ভাঙ্গিয়া গেল। সম্মুখে এক অপূর্ব্ব দৃশ্য দেখিলাম। স্তরে স্তরে রৌপ্য ও সুবর্ণ bars সজ্জিত রহিয়াছে। অনুমান করিয়া দেখিলাম, উহার মূল্য কুড়ি হইতে ত্ৰিশ লক্ষ হইবে। উহা দেখিয়া কাপ্তেন মহাশয়ের কিঞ্চিৎ লোভ হইল। তিনি প্রস্তাব করিলেন যে, ঐ ধন আমরা তুলিয়া লইয়া আপনাদিগের মধ্যে ভাগ করিয়া লই।

 বন্ধুবর বলিলেন:—

 “আমি এ প্রস্তাবে সম্মত নহি। জানিয়া শুনিয়া ইহা লইলে যদি কোন প্রকারে কথাটা প্ৰকাশ পায়, তাহা হইলে আমাদিগকে ফৌজদারীতে পড়িতে হইবে। তবে এক কাজ করিতে পারি। ইহা তুলিয়া লইয়া গিয়া যাহাদের ধন তাহাদের পৌঁছাইয়া দিলে তাহারা Salvage বাবৎ শতকরা কুড়ি টাকা পর্য্যন্ত দিতে অস্বীকার করিবে না। আপনি তাহার শতকরা পাঁচ টাকা মত অংশ লইবেন। আর পাঁচ টাকা মত অংশ আমরা লইব।”

 ভগ্নস্বরে কাপ্তেন মহাশয় বলিলেন:—

 “আপনার কথা স্বীকার করি; কিন্তু এত ধন উত্তোলন করিতে সময় লাগিবে। আর আমাদিগের কার্য্যের বিলম্ব ঘটিবে। আপনি যাহা ভাল বুঝেন করুন।”

 “আমিও ঐ কথা বলিতে যাইতেছিলাম। কেননা, আমরা যে কার্য্যে প্ৰবৃত্ত হইয়াছি, তাহার ব্যাঘাত কোন মতেই করিতে পারি না। কাজেই এখন এই ধন উত্তোলন প্রস্তাব স্থগিত থাকুক। সময়ান্তে যাহা ভাল হয় করিব।”