পাতা:Vanga Sahitya Parichaya Part 1.djvu/৫০৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Ha-8 বঙ্গ-সাহিত্য-পরিচয় । ভাবিয়া ভবনে গেল ভৰ্ত্তার নিকটে। নিদ্ৰিত হৈয়াছে কালু সিংহ স্বর্ণ-খাটে । অচেতন হৈয়া বীর কালু নিদ্রা যায়। শিয়রে বসিয়া শিরা (১) চামর চুলায়। লক্ষ্মা বলে মোর সবিনয় শুন শিরে । তৎকাল জাগায়্যা দেহ তুমি মহাবীরে ॥ নব লক্ষ দলে মাহু (২) পাত্র ময়না বেড়ে । বিপক্ষের হাতে পুরী পড়িল বিখেড়ে ॥ টল বল করে পদ্ম-পত্রে যেন জল । প্রভু না জাগিলে ময়না যায় রসাতল ॥ শিরা বলে দিদি আমি অকার্য্যের পাত্র। নাক কাণ আছে বাকি কাটাইবে মাত্র । (৩) সোয়ামীর যত ভোগ ভুজি (৪) সবে জানে। কাচা নিদ্রা ভঙ্গ হল্যে বধিবেক প্রাণে ॥ মরুক আমার স্বামী খায়্যা বিষ-খণ্ড । বাপের বাসেতে যাব হৈয়া তপ্ত রাও (৫) ॥ সংগ্রামে স্বামীর অঙ্গে প্রবেণ্ডক শেল । সিন্দুর নামিলে ভালে শিরোরূহে তেল ॥ (৬) জীয়ন্ত স্বামীরে মোরে বিধি কৈল বাকা(৭)। দুঃখে কাল গেল না পরিনু সোণ শাখা ৷ জাগাইয়্যা লইয়া যাহ যুদ্ধে বীরবরে। বীর মল্যে বঞ্চি গিয়া মা বাপের ঘরে ॥ শিরার আক্ষেপ উক্তি শুষ্ঠা লক্ষ্ম জলে। বীরে জাগাইতে রামা বস্তে খাট-তলে ৷ রচিল গোবিন্দ বন্দ্য শ্ৰীধৰ্ম্মের পায়। শুনিলে কলুষ হরে যে গায় গাওয়ি ॥৫ (১) শিরা–লক্ষ্মা ডুমুনির সপত্নী। ' (২) মাহুষ্ঠা ৷ (৩) শিরা বলিল, আমি এ গৃহে কোন কাৰ্য্যে নাই, আমার সব স্থখই হইয়াছে, এখন স্বামীর কাচা ঘুম ভাঙ্গাইয়া আমার নাক কান কাটাইবে মাত্র। (৪) সম্ভোগ করি । , (৫) তপ্ত =নুতন। রাও=রাড়ী। (৬) আমার চুলের তেল ও কপালের সিন্দুর যদি খসিয়া পড়ে, অর্থাৎ যদি আমি বিধবা হই, তবে বরং মঙ্গল। (৭) বক্র = প্রতিকুল = নিষ্ঠুর।