.ে পুরাণের গল্প i e -মসির Qজেব হাতে ছবি একে, নিজেব নব প্রতিষ্ঠিত ইউ বায এও সলেব কার্যালয় থেকে, নিজেব প্রেসে মুদ্রিত কবে, এই বই লেখক প্রকাশ কবেছিলেন। উপেন্দ্রকিশোব বিশ্বাস করলে আমাদেব শিক্ষা ও সংস্কৃতি মূলে আছে রামাযণ, মহাভারতও পৌবাণিক ঐম্বি। এগুলি। না জানলে নিজেদের বা নিজের দেশকে জানা যায় না। পূরাণ হল প্রাচীন ইতিবৃত্ত ও কিংবদন্তী দিয়ে তৈরি শাস্ত্রবিশেষ। আঠাবোটি পুরাণ আছে, যথা ব্ৰহ্মা, পদ, ব্ৰহ্মা বৈবর্ত, লিঙ্গ, বরাহ, স্বদ, বামন, কর্ম, সংসা, গরুড়, ব্ৰহ্মাও । তা স্থাড়া নৃসিংহ কালি ইত্যাদি উপপুরাণও আছে। পণ্ডিতবা সবগুলিকেসমান গুরুত্ব দেলন।সাধারণ লোকের পক্ষে সবগুলি বিশদভাবে পড়াও সম্ভবনয়। অঞ্চ আমাদের সাহিত্যসংস্কৃতির মূলে এগুলিও আছে। বর্তমান গ্রত্রে উপেন্দ্রকিশোর বাহই করে কয়েকটি পৌরাণিক কাহিনী ছোটদের উপযুক্ত করে লিখেছেন। যেই সব গ, তেমই তার তাবা। লেখাগুলি মোটামুটি সনেশ-এ প্রকাশিত কালানুক্রমেই কিন্যস্ত হল।