"পাতা:গল্পগুচ্ছ (দ্বিতীয় খণ্ড).djvu/৪৬" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(পাইউইকিবট স্পর্শ সম্পাদনা)
পাতার অবস্থাপাতার অবস্থা
-
মুদ্রণ সংশোধন করা হয়নি
+
মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে
শীর্ষক (অন্তর্ভুক্ত হবে না):শীর্ষক (অন্তর্ভুক্ত হবে না):
১ নং লাইন: ১ নং লাইন:
  +
{{rh||গল্পগুচ্ছ|২৫৭}}
পাতার প্রধান অংশ (পরিলিখিত হবে):পাতার প্রধান অংশ (পরিলিখিত হবে):
১ নং লাইন: ১ নং লাইন:
 
{{rh||বিচারক|}}
গল্পগুচ্ছ ૨૬૧
 
 
{{rh||প্রথম পরিচ্ছেদ|}}
বিচারক
 
 
অনেক অবস্থান্তরের পর অবশেষে গতযৌবনা ক্ষীরােদা যে পুরুষের আশ্রয় প্রাপ্ত হইয়াছিল, সেও তাহাকে জীর্ণ বস্ত্রের ন্যায় পরিত্যাগ করিয়া গেল। তখন অন্নমুষ্টির জন্য দ্বিতীয় আশ্রয় অন্বেষণের চেষ্টা করিতে তাহার অত্যন্ত ধিক্‌কার বােধ হইল।
প্রথম পরিচ্ছেদ
 
  +
অনেক অবস্থান্তরের পর অবশেষে গতযৌবনা ক্ষীরোদা যে পরিষের আশ্রয় প্রাপ্ত হইয়াছিল, সেও তাহাকে জীণ বন্দ্রের ন্যায় পরিত্যাগ করিয়া গেল। তখন অন্নমস্টির জন্য দ্বিতীয় আশ্রয় অন্বেষণের চেষ্টা করিতে তাহার অত্যন্ত ধিককার বোধ হইল।
 
যৌবনের শেষে শত্র শরৎকালের ন্যায় একটি গভীর প্রশান্ত প্রগাঢ় সন্দের বয়স আসে যখন জীবনের ফল ফলিবার এবং শস্য পাকিবার সময়। তখন আর উন্দাম যৌবনের বসন্তচঞ্চলতা শোভা পায় না। তত দিনে সংসারের মাঝখানে আমাদের ঘর বাঁধা একপ্রকার সাঙ্গ হইয়া গিয়াছে; অনেক ভালো-মক্স, অনেক সংখদঃখ, জীবনের মধ্যে পরিপাক প্রাপ্ত হইয়া অন্তরের মানুষটিকে পরিণত করিয়া তুলিয়াছে; আমাদের আয়ত্তের অতীত কুহকিনী দয়াশার কপনালোক হইতে সমস্ত উদভ্ৰাত বাসনাকে প্রত্যাহরণ করিয়া আপন ক্ষুদ্র ক্ষমতার গহপ্রাচীরমধ্যে প্রতিষ্ঠিত করিয়াছি; তখন নতেন প্রণয়ের মাগধদটি আর আকর্ষণ করা যায় না, কিন্তু পরাতন লোকের কাছে মানুষ আরও প্রিয়তর হইয়া উঠে। তখন যৌবনলাবণ্য অম্পে আলেপ বিশীর্ণ হইয়া আসিতে থাকে, কিন্তু জরবিহীন অন্তর-প্রকৃতি বহনকালের সহবাসরুমে মুখে চক্ষে যেন সফটতর রাপে অঙ্কিত হইয়া যায়, হাসিটি দষ্টিপাতটি কণ্ঠস্বরটি ভিতরকার মানুষটির বারা ওতপ্রোত হইয়া উঠে। ষাহা কিছু পাই নাই তাহার আশা ছাড়িয়া, যাহারা ত্যাগ করিয়া গিয়াছে তাহাদের জন্য শোক সমাপ্ত করিয়া, যাহারা বঞ্চনা করিয়াছে তাহাদিগকে ক্ষমা করিয়া— যাহারা কাছে আসিয়াছে, ভালোবাসিয়াছে, সংসারের সমস্ত কড়ঝঞ্জা শোকতাপ বিচ্ছেদের মধ্যে ষে-কয়টি প্রাণী নিকটে অবশিষ্ট রহিয়াছে, তাহাদিগকে বকের কাছে টানিয়া লইয়া—সুনিশ্চিত স্পরীক্ষিত চিরপরিচিতগণের প্রতিপরিবেস্টনের মধ্যে নিরাপদ নীড় রচনা করিয়া, তাহারই মধ্যে সমস্ত চেষ্টার অবসান এবং সমস্ত আকাংক্ষার পরিতৃপ্তি লাভ করা যায়। যৌবনের সেই মিখ সায়াহে জীবনের সেই শান্তিপবেও যাহাকে নতন সঞ্চয়, নতন পরিচয়, নতন বন্ধনের কথা আশবাসে নতন চেণ্টায় ধাবিত হইতে হয়-তখনও যাহার বিশ্রামের জন্য শয্যা রচিত হয় নাই, যাহার গহপ্রত্যাবতনের জন্য সন্ধ্যাদীপ প্রজবলিত হয় নাই—সংসারে তাহার মতো শোচনীয় আর কেহ নাই।
+
{{gap}}যৌবনের শেষে শুভ্র শরৎকালের ন্যায় একটি গভীর প্রশান্ত প্রগাঢ় সুন্দর বয়স আসে যখন জীবনের ফল ফলিবার এবং শস্য পাকিবার সময়। তখন আর উদ্দাম যৌবনের বসন্তচঞ্চলতা শােভা পায় না। তত দিনে সংসারের মাঝখানে আমাদের ঘর বাঁধা একপ্রকার সাঙ্গ হইয়া গিয়াছে; অনেক ভালাে-মন্দ, অনেক সুখদুঃখ, জীবনের মধ্যে পরিপাক প্রাপ্ত হইয়া অন্তরের মানুষটিকে পরিণত করিয়া তুলিয়াছে; আমাদের আয়ত্তের অতীত কুহকিনী দুরাশার কল্পনালােক হইতে সমস্ত উদভ্রান্ত বাসনাকে প্রত্যাহরণ করিয়া আপন ক্ষুদ্র ক্ষমতার গৃহপ্রাচীরমধ্যে প্রতিষ্ঠিত করিয়াছি; তখন নূতন প্রণয়ের মুগ্ধদৃষ্টি আর আকর্ষণ করা যায় না, কিন্তু পুরাতন লােকের কাছে মানুষ আরও প্রিয়তর হইয়া উঠে। তখন যৌবনলাবণ্য অল্পে অল্পে বিশীর্ণ হইয়া আসিতে থাকে, কিন্তু জরাবিহীন অন্তর-প্রকৃতি বহুকালের সহবাসক্রমে মুখে চক্ষে যেন স্ফুটতর রূপে অঙ্কিত হইয়া যায়, হাসিটি দৃষ্টিপাতটি কণ্ঠস্বরটি ভিতরকার মানুষটির দ্বারা ওতপ্রােত হইয়া উঠে। যাহা কিছু পাই নাই তাহার আশা ছাড়িয়া, যাহারা ত্যাগ করিয়া গিয়াছে তাহাদের জন্য শােক সমাপ্ত করিয়া, যাহারা বঞ্চনা করিয়াছে তাহাদিগকে ক্ষমা করিয়া—যাহারা কাছে আসিয়াছে, ভালােবাসিয়াছে, সংসারের সমস্ত ঝড়ঝঞ্জা শােকতাপ বিচ্ছেদের মধ্যে যে-কয়টি প্রাণী নিকটে অবশিষ্ট রহিয়াছে, তাহাদিগকে বুকের কাছে টানিয়া লইয়া-সুনিশ্চিত সুপরীক্ষিত চির-পরিচিতগণের প্রীতিপরিবেষ্টনের মধ্যে নিরাপদ নীড় রচনা করিয়া, তাহারই মধ্যে সমস্ত চেষ্টার অবসান এবং সমস্ত আকাঙ্ক্ষার পরিতৃপ্তি লাভ করা যায়। যৌবনের সেই স্নিগ্ধ সায়াহ্নে জীবনের সেই শান্তিপর্বেও যাহাকে নূতন সঞ্চয়, নূতন পরিচয়, নূতন বন্ধনের বৃথা আশ্বাসে নূতন চেষ্টায় ধাবিত হইতে হয়—তখনও যাহার বিশ্রামের জন্য শষ্যা রচিত হয় নাই, যাহার গৃহপ্রত্যাবর্তনের জন্য সন্ধ্যাদীপ প্রজ্বলিত হয় নাই-সংসারে তাহার মতাে শােচনীয় আর কেহ নাই।
  +
ক্ষীরোদা তাহার যৌবনের প্রান্তসীমায় যেদিন প্রাতঃকালে জাগিয়া উঠিয়া দেখিল তাহার প্রণয়ী পবরাত্রে তাহার সমস্ত অলংকার ও অর্থ অপহরণ করিয়া পলায়ন করিয়াছে, বাড়িভাড়া দিবে এমন সঞ্চয় নাই—তিন বৎসরের শিশু পত্রটিকে দন্ধ আনিয়া খাওয়াইবে এমন সংগতি নাই--যখন সে ভাবিয়া দেখিল, তাহার জীবনের আটত্রিশ বৎসরে সে একটি লোককেও আপনার করিতে পারে নাই, একটি ঘরের প্রান্তেও বাঁচিবার ও মরিবার অধিকার প্রাপ্ত হয় নাই—যখন তাহার মনে পড়িল, আবার আজ আশ্রজেল মাছিয়া দই চক্ষে অঞ্জন পরিতে হইবে, অধরে ও কপোলে BBBB uB BBB DDBS DDDt BDDBB DD DBBD DD DDD হাস্যমন্খে অসীম ধৈর্য-সহকারে নতন হাদয়-হরণের জন্য নতম মায়াপাশ বিস্তার
+
{{gap}}ক্ষীরােদা তাহার যৌবনের প্রান্তসীমায় যেদিন প্রাতঃকালে জাগিয়া উঠিয়া দেখিল তাহার প্রণয়ী পূর্বেরাত্রে তাহার সমস্ত অলংকার ও অর্থ অপহরণ করিয়া পলায়ন করিয়াছে, বাড়িভাড়া দিবে এমন সঞ্চয় নাই-তিন বৎসরের শিশু পুত্রটিকে দুধ আনিয়া খাওয়াইবে এমন সংগতি নাই—যখন সে ভাবিয়া দেখিল, তাহার জীবনের আটত্রিশ বৎসরে সে একটি লােককেও আপনার করিতে পারে নাই, একটি ঘরের প্রান্তেও বাঁচিবার ও মরিবার অধিকার প্রাপ্ত হয় নাই—যখন তাহার মনে পড়িল, আবার আজ অশ্রুজল মুছিয়া দুই চক্ষে অঞ্জন পরিতে হইবে, অধরে ও কপোলে অলক্তরাগ চিত্রিত করিতে হইবে, জীর্ণ যৌবনকে বিচিত্র ছলনায় আচ্ছন্ন করিয়া হাস্যমুখে অসীম ধৈর্য-সহকারে নূতন হদয়-হরণের জন্য নূতন মায়াপাশ বিস্তার
৪,৬১৯টি

সম্পাদনা