"পাতা:আমি কেন ঈশ্বরে বিশ্বাস করিনা - প্রবীর ঘোষ.pdf/১১৮" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
 
পাতার প্রধান অংশ (পরিলিখিত হবে):পাতার প্রধান অংশ (পরিলিখিত হবে):
১ নং লাইন: ১ নং লাইন:
 
সুর করে গাইতে থাকেন, “আল্লা মহান, মহম্মদ তার নবী ; আল্লা আমাদের দূরে রাখুক সমস্ত পাপ থেকে"।
 
সুর করে গাইতে থাকেন, “আল্লা মহান, মহম্মদ তার নবী ; আল্লা আমাদের দূরে রাখুক সমস্ত পাপ থেকে"।
   
{{gap}}পুরুষ শাসিত সমাজ এইসব অঞ্চলের মস্তিষ্ক স্নায়ুকোষের রন্ধ্রে রন্ধ্রে এই বিশ্বাসের বীজ রােপণ করেছে, কাম নারীদের পাপ, পুরুষদের পুণ্য। খৎনার পর সেলাই করে দেওয়া হয় ঋতুস্রাবের জন্য সামান্য ফাঁক রেখে যােনিমুখ। খােলা থাকে সূত্রমুখ। খৎনার পর চল্লিশ দিন পর্যন্ত বালিকার দুই উরুকে একত্রিত করে বেঁধে রাখা হয়, যাতে যােনি মুখ ভালমতো জুড়ে যেতে পারে। বিয়ের পর সেলাই কেটে যােনিমুখ ফাঁক করা হয়, স্বামীর কামকে তৃপ্ত করার জন্য ।
+
{{gap}}পুরুষ শাসিত সমাজ এইসব অঞ্চলের মস্তিষ্ক স্নায়ুকোষের রন্ধ্রে রন্ধ্রে এই বিশ্বাসের বীজ রােপণ করেছে, কাম নারীদের পাপ, পুরুষদের পুণ্য। খৎনার পর সেলাই করে দেওয়া হয় ঋতুস্রাবের জন্য সামান্য ফাঁক রেখে যােনিমুখ, খােলা থাকে সূত্রমুখ। খৎনার পর চল্লিশ দিন পর্যন্ত বালিকার দুই উরুকে একত্রিত করে বেঁধে রাখা হয়, যাতে যােনি মুখ ভালমতো জুড়ে যেতে পারে। বিয়ের পর সেলাই কেটে যােনিমুখ ফাঁক করা হয়, স্বামীর কামকে তৃপ্ত করার জন্য ।
 
আবারও বলি, স্বামীর কামকে তৃপ্ত করার জন্যই ; কারণ নারীর কাম তাে ওরা পাপ বলে চিহ্নিত করে নারীকে করতে চেয়েছে কাম-গন্ধহীন যৌন-যন্ত্র। সন্তান প্রসবের সময় সেলাই আরও কাটা হয়। প্রসব শেষে আবার সেলাই । তালাক
 
আবারও বলি, স্বামীর কামকে তৃপ্ত করার জন্যই ; কারণ নারীর কাম তাে ওরা পাপ বলে চিহ্নিত করে নারীকে করতে চেয়েছে কাম-গন্ধহীন যৌন-যন্ত্র। সন্তান প্রসবের সময় সেলাই আরও কাটা হয়। প্রসব শেষে আবার সেলাই । তালাক
 
পেলে বা বিধবা হলে আবার নতুন করে সেলাই পড়ে ঋতুস্রাবের সামান্য ফাঁক রেখে। আবার বিয়ে, আবার কেটে ফাঁক করা হয় যােনি। জন্তুর চেয়েও অবহেলা ও লাঞ্ছনা মানুষকে যে বিধান দেয়, সে বিধান কখনই মানুষের বিধান হতে
 
পেলে বা বিধবা হলে আবার নতুন করে সেলাই পড়ে ঋতুস্রাবের সামান্য ফাঁক রেখে। আবার বিয়ে, আবার কেটে ফাঁক করা হয় যােনি। জন্তুর চেয়েও অবহেলা ও লাঞ্ছনা মানুষকে যে বিধান দেয়, সে বিধান কখনই মানুষের বিধান হতে
 
পারে না। এ তাে শুধু নারীর অপমান নয়, এ মনুষ্যত্বের অবমাননা।
 
পারে না। এ তাে শুধু নারীর অপমান নয়, এ মনুষ্যত্বের অবমাননা।
   
{{gap}}ইসলামের বেহেশত খুঁড়িখানা আর বেশ্যাপল্লী বই কিছুই নয়। এখানে যৌন-সুখ ও ইন্দ্রিয়সুখ ভােগ করার অধিকারী পুরুষ। বেহেশতের হররা সৌন্দর্যে সূর্য, চন্দ্রাকেও মলিন করে। পুরুষদের জন্য বেহেশতের সুখ বিষয়ে কোরআন বলছে, “ওদের সঙ্গিনী দেব আয়তনয়না হ্র।" [সূরা দুখান ঃ ৫৪]"সাবধানীদের জন্যে রয়েছে সাফল্য উদ্যান, দ্রাক্ষা, সমবয়স্কা উদ্ভিন্নযৌবনা তরুণী এবং পূর্ণ পানপাত্র ।" [সূরা নাবা ঃ ৩১৪৩৪] এই আয়তনয়না অসামান্য সুন্দরী হুরদের সঙ্গে বেহেশতে আসা পৃথিবীর পুরুষদের মিলন ঘটাবার লােভ দেখানাে হয়েছে [সুরা তূর ২০| কোরআনে। এইসব স্বর্গসুন্দরীরা যে হারে অনাঘ্রাত ফুল এবং বেহেশতে আসা পুরুষরাই তাদের জীবনের প্রথম পুরুষ, সে নিশ্চিন্ত তার প্রতিশ্রুতিও রয়েছে কোরআনে সূরা রহমান : ৫৬]!
+
{{gap}}ইসলামের বেহেশত খুঁড়িখানা আর বেশ্যাপল্লী বই কিছুই নয়। এখানে যৌন-সুখ ও ইন্দ্রিয়সুখ ভােগ করার অধিকারী পুরুষ। বেহেশতের হররা সৌন্দর্যে সূর্য, চন্দ্রাকেও মলিন করে। পুরুষদের জন্য বেহেশতের সুখ বিষয়ে কোরআন বলছে, “ওদের সঙ্গিনী দেব আয়তনয়না হুর।" [সূরা দুখান ঃ ৫৪]"সাবধানীদের জন্যে রয়েছে সাফল্য : উদ্যান, দ্রাক্ষা, সমবয়স্কা উদ্ভিন্নযৌবনা তরুণী এবং পূর্ণ পানপাত্র ।" [সূরা নাবাঃ ৩১ঃ৩৪] এই আয়তনয়না অসামান্য সুন্দরী হুরদের সঙ্গে বেহেশতে আসা পৃথিবীর পুরুষদের মিলন ঘটাবার লােভ দেখানাে হয়েছে [সুরা তূর : ২০] কোরআনে। এইসব স্বর্গসুন্দরীরা যে হারে অনাঘ্রাত ফুল এবং বেহেশতে আসা পুরুষরাই তাদের জীবনের প্রথম পুরুষ, সে নিশ্চিন্ততার প্রতিশ্রুতিও রয়েছে কোরআনে সূরা রহমান : ৫৬]!
   
 
{{center|O}}
 
{{center|O}}
{{center|'''ইসলামের বেহেশত শুটিখানা আর বেশ্যাপন্নী বই কিছুই নয়।'''}}
+
{{center|'''ইসলামের বেহেশত শুঁড়িখানা আর বেশ্যাপল্লী বই কিছুই নয়।'''}}
 
{{center|'''এখানে যৌন-সুখ ও ইন্দ্রিয়সুখ ভােগ করার অধিকারী পুরুষ।'''}}
 
{{center|'''এখানে যৌন-সুখ ও ইন্দ্রিয়সুখ ভােগ করার অধিকারী পুরুষ।'''}}
 
{{center|O}}
 
{{center|O}}
১৬ নং লাইন: ১৬ নং লাইন:
   
 
{{gap}}হিন্দু ধর্মগ্রন্থগুলােও একইভাবে নারীকে শয়তান রূপেই চিহ্নিত করেছে। মহাভারত অনুশাসনপর্ব : ৩৮ -এ বলা হয়েছে—তুলাদন্ডের একদিকে যম, বায়ু
 
{{gap}}হিন্দু ধর্মগ্রন্থগুলােও একইভাবে নারীকে শয়তান রূপেই চিহ্নিত করেছে। মহাভারত অনুশাসনপর্ব : ৩৮ -এ বলা হয়েছে—তুলাদন্ডের একদিকে যম, বায়ু
১১৮