"পাতা:আমি কেন ঈশ্বরে বিশ্বাস করিনা - প্রবীর ঘোষ.pdf/১২৪" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
 
পাতার প্রধান অংশ (পরিলিখিত হবে):পাতার প্রধান অংশ (পরিলিখিত হবে):
১ নং লাইন: ১ নং লাইন:
আমার এই কথাগুলাে লেখার উদ্দেশ্য আফগানিস্তানের সােভিয়েতপন্থী কমিউনিস্ট সরকার বাঘুজাহেদিনদের সমর্থন বা অসমর্থন নয়। আমি আফগানিস্তানের সাম্প্রতিক সমাজ-চিত্র তুলে ধরে এটুকুই প্রমাণ করতে চাইছি, ধর্ম বিশ্বাস'-এর উপর একটি সমাজের সামগ্রিক মূল্যবােধের উন্নতি নির্ভর করে না।
+
আমার এই কথাগুলাে লেখার উদ্দেশ্য আফগানিস্তানের সােভিয়েতপন্থী কমিউনিস্ট সরকার বা মুজাহেদিনদের সমর্থন বা অসমর্থন নয়। আমি আফগানিস্তানের সাম্প্রতিক সমাজ-চিত্র তুলে ধরে এটুকুই প্রমাণ করতে চাইছি, 'ধর্ম বিশ্বাস'-এর উপর একটি সমাজের সামগ্রিক মূল্যবােধের উন্নতি নির্ভর করে না।
   
{{gap}}কারণঃ দুই—প্রাচীনকাল থেকে আধুনিক কালের ধর্মগুরু, ধর্মযাজক, পীর-মোল্লাদের ইতিহাসের দিকে প্রিয় পাঠক-পাঠিকারা ফিরে তাকান। স্বচ্ছ দৃষ্টি নিয়ে তাকান। দেখতে পাবেন, এইসব নীতিজ্ঞানী ধর্মীয়বেত্তাদের জীবনে
+
{{gap}}'''কারণঃ দুই'''—প্রাচীনকাল থেকে আধুনিক কালের ধর্মগুরু, ধর্মযাজক, পীর-মোল্লাদের ইতিহাসের দিকে প্রিয় পাঠক-পাঠিকারা ফিরে তাকান। স্বচ্ছ দৃষ্টি নিয়ে তাকান। দেখতে পাবেন, এইসব নীতিজ্ঞানী ধর্মীয়বেত্তাদের জীবনে
সদাচারের বদলে বার বার জড়িয়ে গেছে ঐশ্বর্যলিসা, বিলাসিতা, ক্ষমতালিপ্সা, দুর্নীতি, ব্যভিচার, বিকৃত-কামনা, ভ্রান্ত চিন্তা, মিথ্যাচারিতা ইত্যাদি নানা কদাচার। প্রাতিষ্ঠানিক ধর্ম যেখানে ধর্মগুরুদের কদাচারেই লাগাম লাগাতে পারেনি, সেখানে সাধারণ মানুষদের সদাচার শেখাবে কীভাবে ?
+
সদাচারের বদলে বার বার জড়িয়ে গেছে ঐশ্বর্যলিপ্সা, বিলাসিতা, ক্ষমতালিপ্সা, দুর্নীতি, ব্যভিচার, বিকৃত-কামনা, ভ্রান্ত-চিন্তা, মিথ্যাচারিতা ইত্যাদি নানা কদাচার। প্রাতিষ্ঠানিক ধর্ম যেখানে ধর্মগুরুদের কদাচারেই লাগাম লাগাতে পারেনি, সেখানে সাধারণ মানুষদের সদাচার শেখাবে কীভাবে ?
   
 
{{center|O}}
 
{{center|O}}
৯ নং লাইন: ৯ নং লাইন:
 
{{center|O}}
 
{{center|O}}
   
{{gap}}কারণ : তিন—১৯৮৮ সালে আমাদের দেশের ১০০ জন অপরাধীর উপর একটি ‘সার্ভে' বা 'তথ্যানুসন্ধান'-এর কাজ চালিয়েছিল ভারতীয় বিজ্ঞান ও যুক্তিবাদী সমিতি'। বিভিন্ন ধরনের অপরাধীদের এজন্য বেছে নেওয়া হয়েছিল।
+
{{gap}}'''কারণ : তিন'''—১৯৮৮ সালে আমাদের দেশের ১০০ জন অপরাধীর উপর একটি ‘সার্ভে' বা 'তথ্যানুসন্ধান'-এর কাজ চালিয়েছিল ভারতীয় বিজ্ঞান ও যুক্তিবাদী সমিতি'। বিভিন্ন ধরনের অপরাধীদের এজন্য বেছে নেওয়া হয়েছিল।
এই ১০০ জন অপরাধিদের প্রত্যেকেই কোনও না কোনও প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মের সঙ্গে নিজেদের বিশ্বাসকে যুক্ত করে হিন্দু-মুসলমান-খ্রিস্টান বলে পরিচয় দিয়েছিল। এরা প্রত্যেকেই আত্মা, পরমাত্মা, স্বর্গ-নরক, পাপ-পূণ্য ইত্যাদি প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মের আরােপিত বিশ্বসে পুরােপুরি আস্থাশীল ছিল। এই প্রসঙ্গ নিযে কারণঃ আটত্রিশ'-এ আরও একটু বিস্তৃতভাবে আলােচনা করেছি।
+
এই ১০০ জন অপরাধিদের প্রত্যেকেই কোনও না কোনও প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মের সঙ্গে নিজেদের বিশ্বাসকে যুক্ত করে হিন্দু-মুসলমান-খ্রিস্টান বলে পরিচয় দিয়েছিল। এরা প্রত্যেকেই আত্মা, পরমাত্মা, স্বর্গ-নরক, পাপ-পূণ্য ইত্যাদি প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মের আরােপিত বিশ্বাসে পুরােপুরি আস্থাশীল ছিল। এই প্রসঙ্গ নিয়ে 'কারণঃ আটত্রিশ'-এ আরও একটু বিস্তৃতভাবে আলােচনা করেছি।
   
 
{{gap}}প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মগুলাের উপদেশ-ভয়-অলীক বিশ্বাস এইসব অপরাধীদের অপরাধ করা থেকে নিবৃত্ত করতে পারেনি।
 
{{gap}}প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মগুলাের উপদেশ-ভয়-অলীক বিশ্বাস এইসব অপরাধীদের অপরাধ করা থেকে নিবৃত্ত করতে পারেনি।
   
{{gap}}এই আলােচনার পর একথা বলার আর সুযােগ নেই—ধর্মগ্রন্থের নির্দেশিত অাচরণবিধি কাঁটায় কাঁটায় মেনে চলাই সদাচার, ধর্মের বিধান থেকে গড়ে ওঠা way of life-ই আদর্শ জীবনদিশা’, ‘পা-পুণ্য; স্বর্গ-নরক, ঈশ্বর ও ধর্মে
+
{{gap}}এই আলােচনার পর একথা বলার আর সুযােগ নেই—ধর্মগ্রন্থের নির্দেশিত আচরণবিধি কাঁটায় কাঁটায় মেনে চলাই সদাচার, ধর্মের বিধান থেকে গড়ে ওঠা way of life-ই আদর্শ জীবনদিশা’, ‘পাপ-পুণ্য; স্বর্গ-নরক, ঈশ্বর ও ধর্মে
বিশ্বাস মানুষকে অন্যায় কাজ থেকে বিরক্ত করে।
+
বিশ্বাস মানুষকে অন্যায় কাজ থেকে বিরত করে।
   
   
'''কারণ : বিয়ারিশ'''
+
'''কারণ : বিয়াল্লিশ'''
'''পৃথিবী প্যপে-অন্যায়ে-দুর্নীতিতে ভরে গেলে ঈশ্বর কি অবতার হয়ে পৃথিবীতে এসে সমাজ’কে ‘পাপ মুক্ত করবে ? এই কি সমাজ পান্টাবার অনিবার্য উপায় ?'''
+
'''পৃথিবী পাপে-অন্যায়ে-দুর্নীতিতে ভরে গেলে ঈশ্বর কি অবতার হয়ে পৃথিবীতে এসে সমাজ’কে ‘পাপ' মুক্ত করবে ? এই কি সমাজ পাল্টাবার অনিবার্য উপায় ?'''
   
 
পুরানের আমল ছেড়ে ইতিহাসের আমলে পা রাখা থেকে আজ পর্যন্ত যে ইতিহাস
 
পুরানের আমল ছেড়ে ইতিহাসের আমলে পা রাখা থেকে আজ পর্যন্ত যে ইতিহাস