"পাতা:আমি কেন ঈশ্বরে বিশ্বাস করিনা - প্রবীর ঘোষ.pdf/১১১" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট অনাকাঙ্ক্ষিত ফাঁক সরাচ্ছে, কোন সমস্যা?
 
(বট অনাকাঙ্ক্ষিত ফাঁক সরাচ্ছে, কোন সমস্যা?)
পাতার প্রধান অংশ (পরিলিখিত হবে):পাতার প্রধান অংশ (পরিলিখিত হবে):
১১ নং লাইন: ১১ নং লাইন:


{{gap}}মানুষের ধর্ম কখনই অলীক বিশ্বাসের ভিতের উপর গড়ে ওঠা হিন্দু, মুসলিম বা খ্রিস্ট ইত্যাদি হতে পারে না। এমন ভ্রান্ত 'ধর্ম'-চিন্তা আরােপিত। অসাম্যের সমাজ কাঠামােকে টিকিয়ে রাখার স্বার্থেই আরােপিত। মানুষ ধর্মের নামে কৃত্রিম ভাবে এমন ভিন্ন ভিন্ন সম্প্রদায়ে বিভক্ত হতে পারে না। মানুষের
{{gap}}মানুষের ধর্ম কখনই অলীক বিশ্বাসের ভিতের উপর গড়ে ওঠা হিন্দু, মুসলিম বা খ্রিস্ট ইত্যাদি হতে পারে না। এমন ভ্রান্ত 'ধর্ম'-চিন্তা আরােপিত। অসাম্যের সমাজ কাঠামােকে টিকিয়ে রাখার স্বার্থেই আরােপিত। মানুষ ধর্মের নামে কৃত্রিম ভাবে এমন ভিন্ন ভিন্ন সম্প্রদায়ে বিভক্ত হতে পারে না। মানুষের
একটাই ধর্ম 'মনুষ্যত্ব’ বা ‘মানবতা'। 'মনুষ্যত্ব’ বা ‘মানবতা'র সঙ্গে ঈশ্বর বিশ্বাসের মত অলীক বিশ্বাস একান্তভাবেই সুসম্পর্কহীন। সম্পর্ক যদি কিছু থেকে থাকে, তবে তা সংঘর্ষের । অসত্যের বিরুদ্ধে সত্যের সংগ্রামের। অলীকের বিরুদ্ধে বাস্তবের সংগ্রামের।
একটাই ধর্ম 'মনুষ্যত্ব’ বা ‘মানবতা'। 'মনুষ্যত্ব’ বা ‘মানবতা'র সঙ্গে ঈশ্বর বিশ্বাসের মত অলীক বিশ্বাস একান্তভাবেই সুসম্পর্কহীন। সম্পর্ক যদি কিছু থেকে থাকে, তবে তা সংঘর্ষের। অসত্যের বিরুদ্ধে সত্যের সংগ্রামের। অলীকের বিরুদ্ধে বাস্তবের সংগ্রামের।


{{center|O}}
{{center|O}}
২,১৫,৫৯৮টি

সম্পাদনা