শান্তির স্বপক্ষে/জন্মভূমিকে


জন্মভূমিকে

স্বর্গাদপী গরিয়সী জন্মভূমি, মা আমার!
বুঝিনিত আগে
নিতান্ত নির্বোধ কিছু অক্ষম মানুষ
স্বপ্নের ঘোরে থেকে সমস্ত জীবন
বৃথা কষ্ট করে,
বৃথা আগুনের তাপে
ভস্মে ঢালে ঘি।
স্বপ্নাবেশে আচ্ছন্ন মন
অন্ধকারে বেনে বনে মুক্তো ছড়ায়!
নিতান্ত হাস্যকর
ছেলে মানুষের ছেলেখেলা,
তবু যতদিন
অন্যমনে খেলায় নিমগ্ন থাকে
ততদিনই ভালো,
ততদিন ভালো শকুনের
যতদিন শহরে গ্রামে
দুর্ভিক্ষে মারীতে মরে' কাতারে কাতারে
পথে পথে পড়ে থাকে মৃত মানুষের পচা শব।
স্বপ্ন ত দেখেছে অনেকে,
কি পেয়েছে ফল?
স্বপ্ন দেখে ক্ষুদিরাম গিয়েছে ফাঁসীতে।
শিকল ভাঙার স্বপ্নে যারা
আজীবন উজাড় করে
ঢেলে গেছে বুকের শোণিত—
শোণিতের মূল্যে তারা
পেয়েছে অন্তহীন

অবহেলা, অবিচার,
অকৃতজ্ঞ দেশ।
অনায়াসে লাঞ্ছনার, যন্ত্রণার দিন
দিয়েছে তাদের হাতে তুলে।
সব স্বপ্ন ব্যর্থ করে ধূর্ত্ত শেয়ালেরা
প্রতিষ্ঠিত হয়ে আছে যে যার গুহায়।
এখানে আসবে সুদিন
অশোক, পলাশ কৃষ্ণচূড়া
ফুলে ফুলে ছেয়ে যাবে
বসন্তের নবীন উল্লাসে।
যৌবন হবেনা শেষ
অকাল মারীতে,
ঘরে ঘরে নবান্নের
গন্ধবহ বাতাসে বাতাসে
ভরে থাকবে দিবানিশি সমস্ত প্রহর।
এ স্বপ্ন অনেকে দেখেছে।
এ স্বপ্ন এখনো দেখে
এ মাটির কিছু কিছু লোভাতুর মন,
জন্মভূমি, মা আমার
তারা ত জানেনা
মৃত্যুর ফাঁদ পেতে চিরদিন বসে থাকবে
তোমার কুপুত্র যত
শয়তান জহ্লাদ,
নখে দন্তে শান দিয়ে
এইসব নরখাদকেরা
মানুষের স্বপ্ন ভেঙে দেবে।
এখানে স্বপ্ন দেখা বৃথা

যতদিন এইসব ভণ্ড সন্ন্যাসীরা
লোটা-কমণ্ডলু হাতে
মানুষের সংসারে ঢেলে যাবে বিষ
সব সুধা শুষে নিয়ে
ছড়াবে গরল
ততদিন বৃথা,
ততদিন অন্য কোনো স্বপ্ন দেখা বৃথা।
দিবারাত্রি ততদিন ঘুমে-জাগরণে
বলিষ্ঠ রাখা শুধু আপন চেতনা
যেকোনো মুহূর্ত্তে যদি
সংগ্রাম বাধে
এইসব ছদ্মবেশী বাঘ-মানুষের সাথে
আমারে স্বদেশ যেন শুচি স্নান করে
এই ধূর্ত্ত, কপট যত ভেকধারী
নপুংশক জীবের রুধিরে