প্রধান মেনু খুলুন

শরৎ-সাহিত্য-সংগ্রহ . বন্ধু নৃপেনবাৰু আমার সম্বন্ধে অনেক কথা বলিলেন—ভারি মিষ্ট লাগিল, তার সঙ্গে অনেকদিনের পরিচয় । তার নিজের জীবনও অনেকরকম ব্যখার ভিতর দিয়া कांछैिब्रां शिबां८छ् । धषय उशन उांश तङ्ग इइ-शब्लौक वथन खांब्रख एब्ब-उथब শিবপুরে তার সঙ্গে আলাপ হয়, তার পর মধ্যে মধ্যে দেখা হইয়াছে। মনে হয় coq" na fri fsf stafq affi offHttga i cestuftwą Permanent President ঐকুমারবার -অধ্যাপক। তিনি বলিলেন, আমরা বিদেশী সাহিত্যের ভিতর হইতে ততখানি বল পাই না, যতখানি নিজের সাহিত্য থেকে পাই । ধান্তবিক, একটা জিনিস বুঝা, আর তার থেকে রস গ্রহণ করা-দুইটি আলাদা জিনিস। ইংরাজী সাহিত্য তোমরা বুঝিতে পার, কিন্তু রস গ্রহণ করা যাহাকে বলে তাহা অার একটা জিনিস। আগাগোড়া প্রতি লাইনটি আমি বুঝিতে পারি, তত্ত্ব যে জিনিসটা নিজের জীবনে যা দেয় সে জিনিসটা হয় না। তুলনা দ্বারা অন্যান্ত সাহিত্যের মীমাংসা তোমরা করিতে পারিবে । অভিনন্দন সম্বন্ধে কি বলিব, বেশ ভাল হইয়াছে, আমাকে খুব বড় করে দিয়েছ। অনেক সময় লজ্জা বোধ হয়—এগুলি অত্যুক্তি। তবু মানুষের দুৰ্ব্বলতা আছে বলিতে হয়—বেশ লাগে। অত্যস্ত আনন্দের সঙ্গে আমি তা গ্রহণ করিলাম। " তোমাদের চেষ্টা যেন সাঙ্গক ও সৰ্ব্বাঙ্গ-সুন্দর হয়, এই আমার প্রার্থনা ।* সাহিত্য-সলচ্চিত্র হলনের ক্ৰনশ সেদিন হুগলী জেলার কোন্নগর গ্রামে এমনি এক সাহিত্যিক-সম্মেলনে স্নেহাস্পদ লাল মিঞা ভাই সাহেব আমাকে যখন আপনাদের ফরিদপুর শহরে আসার জন্তে আমন্ত্রণ করলেন তখন সেই নিমন্ত্রণ আমি সানন্মে গ্রহণ করে এই অনুরোধ জানিয়েছিলাম, আমি যাবে সভ্য, কিন্তু এবার বেন এ আসরে বহু-আচরিত বন্ধ প্রচলিত; গতানুগতিক প্রথার পরিবর্তন হয়। বলেছিলাম, তোমাদের ফরিদপুরের মিলনক্ষেত্র এবার ষেন সাহিত্যসেবী ও সাহিত্য রস-পিপাসুগণের সম্যক মিলনের কার্ধ্যটা S BBBBS SBBBB BBB DDDD DDDSDDDSBBB DBBD DBBBD DBYDDS DDDD DDDDDD BBB DDD BDDD 0 DDDg BD DDBB BBBD SDBBB BDDS BBBBS elso" ३िॉडब्ल'ब्रछर्मांबलौ DDD DB BBB DBB BBS BB BBDS BDDD DDS D C BBBBBD সংজ্ঞা নিরূপণের বাগ-বিতণ্ডার এর আবহাওয়া যেন বুলিয়ে উঠতে না পারে। বছরে বছরে বঙ্গ-সাহিত্য-সন্মিলনী অনুষ্ঠিত হয়, কখনো বা বাংলার বাহিরে, কখনো বাভিতরে-কখনো পূৰ্ব্ব কখনো পশ্চিম বাংলায়, কিন্তু সৰ্ব্বত্রই চলে ঐ এক নিয়ম এক রীতি। সেখানে হয় সবই, হয় না কেবল পরিচয় । হয় না শুধু ভাবের আদান-প্রদান, বাকী থেকে ষায় পরম্পরের মন জানাজানি। তার অবকাশ কই ? বড় বড় মুনিশ্চিভ সারবান প্রবন্ধের ভারে ভারাক্রান্ত সন্মিলনী মেলামেশার সময় করবে কি, নিশ্বাস নেবার ফুরসৎ করে উঠতে পারে না । সেখান না থাকে পান-তামাক, না থাকে চা। নড়-চড়ার জো নেই পাছে শৃঙ্খলা নষ্ট হয়, হাস্ত-পরিহাসের সাহস নেই পাছে বে-আৰপি প্রকাশ পায়, আলাপ-পরিচয়ের সুযোগ মেলে না পাছে গুরু-গভীর প্রবন্ধের মর্ধ্যাদা ক্ষুন্ন হয় । ষেন আদালতের আসামীর মত সেখানে সবাই গম্ভীর, সবাই বিপন্ন । আড়-চোখে সবাই চেয়ে দেখে প্রবন্ধের খাতায় আরও ক’পাতা লেখা পড়তে তখনও বাকী। তার পরে আসে সভাভঙ্গের পালা—চলে ইন্টিশানে ছুটোছুটি । শুধু পালাবার পথ নেই যাদের তারাই কেবল ক্লাস্ত দেহ-মনে ফিরে চলে বাসায় । এই-হচ্ছে মোটামুট সাহিত্য-সন্মিলনীর বিবরণ। তাই প্রার্থন জানিয়েছিলাম এই ফৰ্বে আরও একট বিড়ম্বনীর কাহিনী যেন ফরিদপুরের অদৃষ্টেও সংযুক্ত হয়ে मां श्वांग्लं । - বিগত দিনের সাহিত্যিক অনুষ্ঠানগুলিকে স্মরণ করে এ প্রশ্ন আজ আমি করবো না সেইসকল লেখাগুলির কোন পদ্‌গতি অদ্যাবধি হয়েছে,—কারণ এ জিজ্ঞাসা বাহুল্য । আপনাদের হাত মনে হবে, কিছু একট। সারালে ও ধারালো লেখা আমার লিখে আনা উচিত ছিল বা ছাপালে হয় সভাপতির অভিভাষণ, কিন্তু তা আমি করিনি । পারিনে বলে নয়, সময় ছিল না বলে নয়, অহেতুক ও অকারণ বলেই লিখিনি। তবে এটা কি ! এ শুধু মুখে বলার শক্তি নেই বলেই এই সভায় উপস্থিত হবার অনতিকাল পূর্বেই ছ'ছত্র টুকে এনেছি। প্রশ্ন উঠতে পারে এ সভার লক্ষ্য কি ? উল্পেত কি ? আমার মনে হয় লক্ষ্য ७५ ७ई कषाल्ले भtन ब्रांथी ७ श्रांबां८षब्र उ९गब, ७ श्रांभां८शब्र त्रांबद्दलब अशéांन । জ্ঞানলাভের উদ্বেগু নিয়ে এখানে আসিনি, যুক্তি-তর্কের বৃদ্ধি ও পাণ্ডিত্য অবলম্বন করে এখানে এলে আমরা সমবেত হইনি। সাহিত্য-চৰ্চার ক্ষেত্র আর যেখানেই cरून बी cरांक ७षांzन बब ।। ७३ कषाछैfहे बांब थांबांद्र अछद्र व८ण । डांदे यांबेि Soon भद्र६-नाश्छिा-मt&ई এসেছি উংসবের মন নিয়ে, আমি এনেছি হৃদয়ের আদান-প্রদানে পরম্পরের স্বনিবিড় পরিচয় নিতে। এ উপলক্ষ না ঘটলে হয়ত কোনদিন আমাদের আপনাদের দেশে আসা হ’তো না, আপনাদের সৌজন্য সহৃদয়ত সৌভ্রাত্র ও আতিথ্যের স্বাম গ্রহণ করা ভাগ্যে জুটতো না। এই আমাদের পরম লাভ, এই আমাদের আজকের সভার সার্থকতা। আরও একটা কথা বড় করে আজ আমার বার বার মনে হয় । মাতৃভাষার সেবক আমরা,-সাহিত্যের পূণ্য মিলনক্ষেত্র ছাড়া এতগুলি হিন্ধুমুসলমান ভাই-বোনের আমরা একাসনে বলে এমনভাবে মিলতে পারতাম আর কোন সভাতলে ? আর একটা কথা বলার বাকী আছে। সে আমার অন্তরের কৃতজ্ঞতা নিবেদন করা। আমার গভীর আনন্দ ও তৃপ্তির কথা শতমুখে বলা। কিন্তু মুখ আমার একটি, তার সাধ্য সীমাবদ্ধ। এই ক্ষোভের কথাটাও জানিয়ে রেখে আমি বিশ্বাস্থ গ্রহণ করলাম le সাহিত্যিক সম্মেলনেক্স ভদ্দেশ্য আপনারা এখানে এসেছেন নানা স্থান থেকে ; এসে আমাদের পরম্পরের সঙ্গে দেধা-সাক্ষাৎ হো’ল, আলাপ পরিচয় হোল। আগে ৰে-সমস্ত সঙ্গী-সমিতিতে আমি যোগ দিয়েছি, এই আক্ষেপই করেছি যে, সভায় ৰোগ দিলাম বটে, কিন্তু পরস্পরের সঙ্গে আলাপ-পরিচয় হো’ল না। এটা একটা উন্নত সাহিত্য-সভা। সাহিত্য আমার পেশী, জীবিকাও এই। এই জিনিসটা আরম্ভ করে আমি কতটা কি করতে পেরেছি না-পেরেছি, তা আপনার পাঁচজনেই জানেন । আপনারা আমায় বলেন বক্তৃতা করতে। প্রথমত আমি বলতে পারিনে, গলাও নেই। কথাও খুজে পাই না, তবুও আপনারা মনে করেন কতকটা কাজ হয়েছে এবং নিজের আত্মবিশ্বাসই বলুন বা আত্মসন্ত্রমই বলুন, আমি মনে করি চেষ্টা আমি করেছি। -: ১৩ই ऋान् ১৩৪• বঙ্গাঙ্গে ফরিদপুর-সাহিত্য-সম্মেলনে প্রদত্ত মূল সভাপতির অভিভাষণ। ১৩৪* कत्रांश्च ‘विफ्रेिंड" प्रांनिक भहिकांद्र थकांलिङ ।