ক্ষণিকা/চিরায়মানা

চিরায়মানা

যেমন আছ তেমনি এসাে,
আর কোরাে না সাজ।
বেণী নাহয় এলিয়ে রবে,
সিথে না হয় বাঁকা হবে,
নাই বা হল পত্রলেখায়
সকল কারুকাজ।
কাঁচল যদি শিথিল থাকে
নাইকো তাহে লাজ।
যেমন আছ তেমনি এসাে,
আর কোরাে না সাজ।।

এসাে দ্রুত চরণ দুটি,
তৃণের 'পরে ফেলে।
ভয় কোরাে না- অলক্তাগ
মােছে যদি মুছিয়া যাক,
নূপুর যদি খুলে পড়ে
নাহয় রেখে এলে।
খেদ কোরাে না মালা হতে
মুক্তা খসে গেলে।

এসাে দ্রুত চরণ দুটি
তৃণের 'পরে ফেলে ।

হেরে গাে ওই আঁধার হল,
আকাশ ঢাকে মেঘে।
ও পার হতে দলে দলে
বকের শ্রেণী উড়ে চলে,
থেকে থেকে শূন্য মাঠে
বাতাস ওঠে জেগে।
ওই রে গ্রামের গােষ্ঠমুখে
ধেনুরা ধায় বেগে।
হেরাে গাে ওই আঁধার হল,
আকাশ ঢাকে মেঘে।

প্রদীপখানি নিবে যাবে,
মিথ্যা কেন আলাে।
কে দেখতে পায় চোখের কাছে
কাজল আছে কি না-আছে-
তরল তব সজল দিঠি
মেঘের চেয়ে কালাে।
আঁখির পাতা যেমন আছে ,
এমনি থাকা ভালাে।

কাজল দিতে প্রদীপখানি
মিথ্যা কেন জ্বালাে।

এসাে হেসে সহজ বেশে,
আর কোরাে না সাজ।
গাঁথা যদি না হয় মালা
ক্ষতি তাহে নাই গাে বালা,
ভূষণ যদি না হয় সারা।
ভূষণে নাই কাজ।
মেঘে মগন পূর্বগগন,
বেলা নাই রে আজ।
এসাে হেসে সহজ বেশে,
নাই বা হল সাজ।।

শিলাইদহ
২৭ জ্যৈষ্ঠ ১৩০৭