ক্ষণিকা/যৌবনবিদায়

যৌবনবিদায়


ওগাে যৌবনতরী,
এবার বােঝাই সাঙ্গ ক’রে
দিলেম বিদায় করি।
কতই খেয়া, কতই খেয়াল,
কতই-না দাঁড়-বাওয়া,
তােমার পালে লেগেছিল
কত দখিন-হাওয়া।
কত ঢেউয়ের টল্‌মলানি,
কত স্রোতের টান,
পূর্ণিমাতে সাগর হতে
কত পাগল বান।

এ পার হতে ও পার ছেয়ে
ঘন মেঘের সারি,
শ্রাবণ-দিনে ভরা গাঙে
দুকুল-হারা পাড়ি।
অনেক খেলা, অনেক মেলা,
সকলই শেষ ক’রে
চল্লিশেরই ঘাটের থেকে
বিদায় দিনু তােরে॥


ওগাে তরুণ তরী,
যৌবনেরই শেষ ক’টি গান
দিনু বােঝাই করি।
সে-সব দিনের কান্না হাসি
সত্য মিথ্যা ফাঁকি
নিঃশেষিয়ে যাস রে নিয়ে,
রাখিস নে আর বাকি।
নােঙর দিয়ে বাঁধিস নে আর,
চাহিস নে আর পাছে,
ফিরে ফিরে ঘুরিস নে আর
ঘাটের কাছে কাছে।

এখন হতে ভাঁটার স্রোতে
ছিন্ন পালটি তুলে,
ভেসে যা রে স্বপ্ন-সমান
অস্তাচলের কূলে।
সেথায় সােনা-মেঘের ঘাটে
নামিয়ে দিয়ো শেষে
বহু দিনের বােঝা তােমার—
চিরনিদ্রার দেশে॥


ওরে আমার তরী,
পারে যাবার উঠল হাওয়া,
ছােট্ রে ত্বরা করি।
যেদিন খেয়া ধরেছিলেম
ছায়াবটের ধারে,
ভােরের সুরে ডেকেছিলেম
‘কে যাবি আয় পারে!’—
ভেবেছিলেম ঘাটে ঘাটে
করতে আনাগােনা
এমন চরণ পড়বে নায়ে
নৌকা হবে সােনা।

এবারের পারাপারে
এত লােকের ভিড়ে
সােনা-করা দুটি চরণ
দেয় নি পরশ কি রে!
যদি চরণ প’ড়ে থাকে
কোনাে একটি বারে—
যা রে সােনার জন্ম নিয়ে
সােনার মৃত্যু-পারে॥