বহুরূপ‌


অগ্নি যেমন ভুবনে প্রবেশি’
নানারূপ ধরে আধার ভেদে,
নিখিলের প্রাণ তেমনি করিয়া
একা নানা ছাঁদ বেড়ান ছেঁদে!

বাতাস যেমন ভুবনে প্রবেশি’
নানা সুরে গাহে যন্ত্র ভেদে,
নিখিলের প্রাণ এক ভগবান
তেমনি বেড়ান হেসে ও কেঁদে!

তপন যেমন নিখিলের আঁখি,-
কলুষে দূষিত হয় না তবু,
নিখিলের প্রাণ তেমনি গাে, তাঁরে
বাহিরের গ্লানি ছোঁয় না কভূ।

সর্ব্বভূতের অন্তরতম,
বহুরূপ তিনি গােপনচারী,
আপনার মাঝে তাঁরে যে দেখেছে।
অক্ষয় সুখ তারি গাে তারি।

কঠোপনিষৎ।