পাতা:অন্ধকূপ-হত্যা-রহস্য - মুজিবর রহমান.pdf/২৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তৃতীয় পরিচ্ছেদ দুর্গের পতনের বিষয় বিবৃত করিয়া ১৭ই জুলাই তারিখে একটী পত্র পাঠাই এবং হুগলীতে উপস্থিত হইয়াই ৩রা আগষ্ট তারিখে উক্তস্থানে আবার পত্র প্রেরণ করি। আমার স্বাস্থ্যের উন্নতি হইলে হুজুরের নিকট পত্র লিখিবার জন্য আমি সেই পত্রে অঙ্গীকার করিয়াছিলাম। এখন আমি আমার অঙ্গীকার পূরণ করিবার জন্য সেই পত্র লিখিতে বসিয়া হুজুরের নিকটে অনুরােধ জানাই যে, হুজুর যেন বিশ্বাস করেন—আমি এসম্বন্ধে সর্বোতভাবে সত্যকথা বলিতেছি এবং আমার যুক্তিতে কিংবা ঘটনার বিবরণে হুজুরের নিকট কোনই প্রতারণার অবতারণা করিব না, অথবা আমার পক্ষে বা অপরের বিরুদ্ধে কোন কিছু বলিবারও প্রয়াস পাইব না। ( আলীবর্দি খাঁর মৃত্যুকাল হইতে কলিকাতার পতন পৰ্য্যন্ত ঘটনাবলীর বিস্তৃত বিবরণ)••••রাজবল্লভের পরিবার যে তীর্থ দর্শন মানসে জগন্নাথ যাইবার অজুহাতে কলিকাতায় আশ্রয় গ্রহণ করিয়াছিল, তাহা ওয়াট সাহেব জানেন কিনা আমি জানিনা।•••••"নবাবের দূত নারায়ণ সিংহ উপযুক্ত দূতের মত দুর্গে প্রবেশ না করিয়া, একজন চোর ও গুপ্তচরের বেশে দুর্গে প্রবেশ করিয়াছিলেন। এইজন্য প্রেসিডেন্ট সাহেব তাহাকে বা তাহার পরওয়ানা গ্রহণ না করিয়া, সভায় এই সব সমালােচনাপূর্বক উপযুক্ত লোকের দ্বারা তঁহাকে দুর্গ হইতে বিদায় গ্রহণ করিতে বলিয়াছিলেন এবং সে অনুসারে তিনিও দুর্গত্যাগ করিয়াছিলেন। কৃষ্ণদাস এবং রাজবল্লভের পরিবারকে দুর্গে আশ্রয় দেওয়ার যে বিবরণ দেওয়া গেল তাহাই সত্য ও নিখুত। এবং সে সম্বন্ধে অনেকেই হিংসাপরবশ হইয়া বিকৃতকারে দেশময় রাষ্ট্র করিয়াছিল েকৃষ্ণদাসকে আশ্রয় দেওয়াই কলিকাতা পতনের একমাত্র কারণ•••••৬ই জুন তারিখে জনরবে শুনা গেল যে নবাব কর্তৃক কাসিমবাজার অধিকৃত হইয়াছে, হুজুরের দ্বিতীয় কর্মচারী কোলেট ( Collet) সাহেবের ওই তারিখের পত্রে ইহা সমর্থিত হইয়াছিল ; আমার