প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অপরাজিত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১৩৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Vuruguras . ܧܘܬ সে একটা কিসের ছাপ দেখিয়ছে, বিতর্তমান অবস্থায় মন তাহার এই অ্যাপ্তরিকতার রেহম্পশটুকুরই কাঙ্গাল কটে-কিন্তু এই বেশে কোথাও যাইতে ইচ্ছা হয় না, এই জামায়, এই কাপড়ে, এই ভাবে। থােক। বরং । তিনদিন পর নিজের নামে একখানা পত্র আসিতে দেখিয়া সে বিস্মিত হইলমা ছাড়া আর তো কাহারও পত্র সে পায় নাই। কে পত্র দিল ? পত্র খালিয়া পড়িল :一 অপৰ্ব্ববােব, আপনার এখানে আসবার কথা ছিল সোমবারে, কিন্তু আঁজ শক্রবার হয়ে গোল আপনি এলেন না । আপনাকে মা একবার অবিশ্যি অবিশ্যি আসতে বলেছেন, না এলে তিনি খাব দঃখিত হকেন । আজ বিকেলে পাঁচটার সময় আপনার আসা ষ্ট্রই। নমস্কার নেবেন। লীলা কথাটা লইয়া মনের মধ্যে সে অনেক বোঝাপড়া করিল। কি লাভ গিয়া ? ওরা বড়মানিষ, কোন বিষয়ে সে ওদের সঙ্গে সমান যে, ওদের বাড়ি যখন-তখন যাইবে ? মেজ-বৌরানী যে তাহার কথা জিজ্ঞাসা করিয়াছেন, সেই কথাটা তাহার মনে অনেকবার যাওয়া-আসা করিল-সেইটা, আর লীলার আঙ্গরিকতা ! কিন্তু মেজ-বৌরানী কি আর তার মায়ের অভাব দীর করিতে পারিকেন ? তিনি বড়লোকের মেয়ে, বড়লোকের বন্ধ ! তাহার মায়ের আসন হৃদয়ের যে স্থানটিতে, সে শািন্ধ তাহার দুঃখিনী মা অর্জন করিয়াছে তাহার বেদনা, ব্যৰ্থতা, দৈন্য-দঃখ, শত অপমান দ্বারা-ছয় সিলিণ্ডারের মিনাভা গাড়িতে চড়িয়া কোনও ধনীবধ-হউন তিনি স্নেহময়ী, হউন তিনি মহিমময়ী--তাঁহার সেখানে প্রবেশাধিকার কোথায় ? জ্যৈষ্ঠ মাসের শেষে পরীক্ষার ফল বাহির হইল। প্রথম বিভাগের প্রথম সতের জনের মধ্যে তাহার নাম, বাংলাতে সকলের মধ্যে প্রথম হইয়াছে, এজন্য একটা সোনার মেডেল পাইবে । এমন কেহ নাই যাহার কাছে খবরটা বলিয়া বাহাদরি করা যাইতে পারে। কোনও পরিচিত বন্ধ বান্ধব পর্যন্ত এখানে নাই-ছিটিতে সব দেশে গিয়াছে । জ্যাঠাইমার কাছে। যাইবে ?--গিয়া জানাইবে জ্যাঠাইমাকে ? • • “কি লাভ, হয়ত তিনি বিরক্স হইবেন, দরকার নাই যাওয়ার । অপরাজিত 研**f河°C疇研 আষাঢ় মাসের মাঝামাঝি সব কলেজ খলিয়া গেল, অপ, কোনও কলেজে ভর্তি হইল না! অধ্যাপক মিঃ বসন্তাহাকে ডাকিয়া পঠাইয়া ইতিহাসে অন্যাস কোস লওয়াইতে ষথেষ্ট চেষ্টা করিলেন ! আপ ভাবিল-কি হবে। আর কলেজে পড়ে ?