প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অপরাজিত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/২৮১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


“আণজ্যিািজত શjs কাজল সরিয়া আসিয়া চাপি চাপি লাজক সরে বলিল-তুমিমদ খাও বাবা ? অপৰ বিস্মিত হইয়া বলিলা-মন্দ ?•••কে বলেছে তোকে ? --সেই যে সেদিন খেলে ? সেই রাঙার মোড়ে একটা দােন্মান থেকে ? পান কিনলে আর সেই যে-* অপাের প্রথমটা অবাক হইয়া গিয়াছিল-পরে বকিয়া হো-হো করিয়া হাসিয়া উঠিয়া বলিল,-দর বোকা -সো হ’ল লেমনেড-সেই পানের দোকানে তো ?*** তোর ঠাণীড়া লেগেছিল বলে তোকে দিই নি ।• • • খাওয়াব তোকে একদিন, ও এক রকম মিনিট শরবৎ। । দার কাজলের কাছে অনেক ব্যাপার পরিমকার হইয়া গেল । * কলিকাতায় আসিয়া সে দেখিয়া অবাক হইয়া গিয়াছিল যে এখানে মোড়ে মোড়ে মদের দোকান--- “পান ও মদ একসঙ্গে বিক্রয় হয় প্রায় সর্বত্র। সোডা লেমনেড সে কখনো দেখে -নাই ইহার আগে, জানিত না-কি করিয়া সে ধরিয়া লইয়াছে বোতলে ওগলো। মদ। তাই তো সেদিন বাবাকে খাইতে দেখিয়া অবাক হইয়া গিয়াছিল-এত দিন লৎজায় বলে নাই । সেই দিনই অপ, তাহাকে লেমনেড খাওয়াইয়া তাহার ভ্ৰম ঘাচাইয়া দিল । এই অবস্থায় একদিন সে বিমলেন্দর পত্র পাইল, একবার আলিপরে লীলার ওখানে পত্রপাঠ আসিতে । লীলার ব্যাপার সংবিধা নয় । তাহারও আর্থিক * অবস্থা বড় শোচনীয় । নিজের যাহা কিছ ছিল গিয়েছে, আর কেহ দেয়াও না, এবাপের বাড়িতে তাহার নাম করিবার পর্যন্ত উপায় নাই। ইদানীং তাহার মা কাশী হইতে তাহাকে টাকা পাঠাইতেন । বিমলেন্দ নিজের খরচ হইতে বাঁচাইয়া কিন্থ টাকা দিদির হাতে দিয়া যাইত। তাহার উপর মশকিল। এই যে, লীলা বড়মানষের মেয়ে, কািন্ট করা অভ্যাস নাই, হাত ছোট করিতে জানে না । এই রকম কিছুদিন গেল। লীলা যেন দিন দিন কেমন হইয়া যাইতেছিল । অমন হাস্যমখী লীলা, তাহার মাখে হাসি নাই, মনমরা বিষন্ন ভাব । শরীরও যেন দিন দিন শকাইয়া যাইতে থাকে । গত বর্ষাকাল এই ভাবেই কাটে, বিমলেন্দ পজার সময় পীড়াপীড়ি করিয়া ডাক্তার দেখায় । ডাক্তারে বলেন, থাইসিসের সত্ৰপাত হইয়াছে, সতক হওয়া দরকার। বিমলেন্দ লিখিয়াছে-লীলার খাব জৰুর। ভুল বকিতেছে, কেহই নাই, L DL s BB DDD DBBBDS BDDDBDDB BD DBB BDBOD না, কি করা যায় এ অবস্থায়। অপর এখানে আজকাল তত আসিতে, পারে না, অনেকদিন লীলাকে দেখে নাই। লীলার মািখ যেন রাঙা, অস্বাভাবিকভাবে রাঙা ও উপেজবল দেখাইতেছে । , ..a বিমলেন্দ শিক্ষকমখে বলিল-কাল রঘয়ার মাখে খবর পেয়ে এসে দেখি এই অবস্থা। এখােন কি করি বলন তো ? বাড়ির কেউ আসবে না, আমি কাউকে * বলতেও যান না, মাকে একখানা টেলিগ্রাম করে দেব ? অপ বলিলা-মা যদি না আসেন ? --কি বলেন ? এক্ষেণি জটে আসকেন-দিদি-অন্ত প্ৰাণ । তিনি বে। আজ