প্রধান মেনু খুলুন

পাতা:অপরাজিত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৭৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অপরাজিত GG --আপনি কি করেন সরেশাদা ? - মেডিকেল কলেজে পড়ি, এবার খাড়া ইয়ার--আপনাদের ওখানে একদিন যাব সরেশাদা-জ্যোঠিমার সঙ্গে দেখা ক’রে আসবে।-- সরেশ ট্রামের পা-দানিতে পা দিয়া উঠিতে উঠিতে অনাসক্ত সরে বলিল, বেশ বেশ, আমি আসি এখন এতদিন পর সরোিশদার সহিত দেখা হওয়াতে অপর মনে এমন বিস্ময় ও আনন্দ হইয়াছিল যে, ট্রামটা ছাড়িয়া দিলে তাহার মনে পড়ল --সরোিশদার বাড়ির ঠিকানাটা তো জিজ্ঞাসা করা হয় নাই !" সে চলন্ত ট্রামের পাশে ছটিতে ছটিতে জিজ্ঞাসা করিল-আপনাদের বাড়ির ঠিকানাটা-ও সরেশন্দা, ঠিকানাটা যে - সমরেশ মাখ বাড়াইয়া বলিল - চব্বিশ-এর দই সি, বিশবকোষ লেন, 町T平吓瓦冈一 পরের রবিবার সকালে স্নান করিয়া অপ, শ্যামবাজারে সরেশাদার ওখানে যাইবার জন্য বাহির হইল। আগের দিন টুইল শ্যাটটা ও কাপড়খানা সাবান দিয়া কাচিয়া শাকাইয়া লইয়াছিল, জনতার শোচনীয় দরবস্থা ঢাকিবার জন্য একটি পরিচিত মেসে এক সহপাঠীর নিকট হইতে জ্যতার কালি চাহিয়া নিজে বরিশ করিয়া লইল । সেখানে অতসী দি ইত্যাদি রহিয়াছেন, দীনহীন বেশে কি যাওয়া ८ढ ঠিকানা খাজিয়া বাহির করিতে দেরি হইল না । ছোটখাটো দোতলা বাড়ি, আধনিক ধরণের তৈয়ারী । ইলেকট্রিক লাইট আছে, বাহিরের বৈঠকখানা, দোতলায় উঠবার সিড়ি । সরেশ বাড়ি ছিল না, বিয়ের কাছে সে পরিচয় দিতে পারিল না, বৈঠকখানায় তাহাকে বসাইয়া ঝি চলিয়া গেল । ঘড়ি, ক্যালেন্ডার, একটা পরনো রোল-টপ ডেস্ক, খানকতক চেয়ার । ভারী সদর বাড়ি তো ! এত আপনার জনের কলিকাতায় এরকম বাড়ি আছে, ইহাতে অপ, মনে মনে একটু গর্ব ও আনন্দ অন্যভব করিল। টেবিলে একখানা সেদিনের অমতবাজার পড়িয়া ছিল, উলটাইয়া পালটাইয়া যন্ধের খবর পড়িতে লাগিল । * অনেক বেলায় সরেশ আসিল । তাহাকে দেখিয়া বলিল, এই যে অপােব, কখন এলে ? অপ. হাসিমখে দাঁড়াইয়া উঠিয়া বলিল-আসন সরেশন্দা-আমি, আমি অনেকক্ষণ ধরে।--বেশ বাড়িটা তো আপনাদের -- --- এটা আমার বড়মামা-যিনি পাটনার উকিল, তিনি কিনেছেন ; তাঁরা তো কেউ থাকেন না, আমরাই থাকি । বসে, আমি আসি বাড়ির মধ্যে থেকে-- অপ. মনে মনে ভাবিল-এবার সরেশাদা বাড়ির ভেতর গিয়ে বললেই জ্যোঠিমা ডেকে পাঠাবে, এখানে খেতে বলবে কিন্তু ঘণ্টাখানেকের মধ্যে সরেশ বাড়ির ভিতর হইতে বাহির হইল না। সে যখন পনরায় আসিল, তখন বারোটা বাজিয়া গিয়াছে। চেয়ারে হেলান দিয়া