পাতা:অশনি সংকেত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৮৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


3. अन्न-ऊ९ंकाऊ অনঙ্গ-বেী অতুিড় থেকে বেরলেও নড়তে চড়তে পারে না-শ্যায়েই থাকে। রান্না ক গঙ্গাচরণ ও হাব। পাঠশালা আজকাল সবদিন হয় না। বিশ্ববাসমশায় এখান থেকে স যাওয়াতে পাঠশালার অবস্থা ভাল নয় । এ দাদিনে আকস্মিক বিপৎপাতের মত দািগ ভটচ একদিন এসে হাজির । গঙ্গাচরণ পাঠশালাতে ছেলে পড়াচে । -এই যে পণ্ডিতমশায় ! গঙ্গাচরণ চমকে গেল। বললে-আসন, কি ব্যাপার ? -as -ও, কি মনে করে ? • स्लोळ उठछका ? 一零1 --সন্তানাদি কিছ হােল ? 一枣花1 গঙ্গাচরণ তখনও ভাবচে, দােগা ভট্টচাষের মতলবখানা কি । ভট্যচায কি বাড়ী যে চাইবে নাকি ? কি মশকিলেই সে পড়েচে । কত বড়লোক আছে দেশে, তাদের বাড়ী যা না, কেন বাপ । আমি নিজে পাইনে খেতে, কোনো রকমে ছেলে দটাের আর রো বউটার জন্যে দটি চাল আটা কত কস্টে যোগাড় করে আনি, ভগবান তা জানেন । থা থাকে, এ ভ্যাজাল কোথা থেকে এসে জোটে তার মধ্যে । দােগ একটা ছেলেকে উঠিয়ে তার কেরোসিন কাঠের বাক্সটার ওপর বসলো, তার গলার উড়নিখানা গলা থেকে খালে হাঁটুর ওপর রেখে বললে--একটু জল খাওয়াতে--- -হ্যাঁ হ্যাঁ। ওরে পটলা, টিউবওয়েল থেকে জল নিয়ে আয় সিকি ঘটিটা মেজে । -একটা কথা আছে। আপনার সঙ্গে, বলচি-জলটা খাই । তেণ্টায় জিব শকিয়ে গিয়েছে জল পান করে দােগা পণ্ডিত একটু সস্থ হয়ে বললে -আঃ ! কিছদ্মক্ষণ দািজনেই চুপচাপ। তারপর দােগই প্রথম বললে- বললে-বড় বিপদে পড়ে পন্ডিত মশাই--- -दि ? -এই মন্বন্তর, তার ওপর চাকরিটা গেল। -পাঠশালার চািকয় ? -श्याँ মশাই ৷ হয়েচে কি, আমি আজ ন’টি বছর কামদেবপর পাঠশালায় সেবে পন্ডিত করচি, মাইনে আগে ছিল সাড়ে তিন টাকা, এখন দেয় পাঁচ টাকা । তা মশা গোয়ালা হােল ইস্কুলের সেক্রেটারি । আজ পাঁচ মাস হেলি কোথা থেকে এক গোয়ালার ছে জটিয়ে এনে তাকে দিয়েচে চাকরি । সে করলে কি মশাই!! দাৰ্জিলিং গেল বেড়াতে সেখান থেকে এসে উন্মাদ পাগল হয়ে গেল --কেনি কেন ? --তা কি করে জানবো মশাই । কোথাকার নাকি ফটোগোরাপ তুলতে গিয়েছিল, সায়ে কি খাইয়ে দেয়-এই তো শািনতে পাই ৷ মশাই, তুমি পাও পাঁচ টকা মাইনে, তোমার বে: দাজি লিং-দাজিলিং-এ যাওয়ার কি দরকার ? সেখানে সায়েব-সিবোদের জায়গা। বাঙালী সেখানে গেলে পাগল করে দেয় ওষধ খাইয়ে । সাধে কি আর বলে