পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/১২৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আ জা কা লা প র শুর গল্প বেপরোয় ভাবের বদলে দুজনের মধ্যেই জেগেছে নিজের কোন ক্ষতি না করে অপরের সর্বনাশ করার কামনা—এমন কি পারলে অপরের সৰ্ব্বনাশ থেকে নিজের কিছু লাভ করে নেবার সাধ ! চাপা ঘোমটা টেনে ভালো করে ঢেকে ঢুকে বসে। বাসে তিনজন লালমুখো গোরা মদে চুর হয়ে বসে ছিল আগে থেকে, মাঝে মাঝে আড় চোখে সে তাদের দিকে তাকায়। রসুলের দিকে চোখ ফেরাতে তার ऊाश्म ठूश का । সহর থেকে বেরিয়ে রাস্তা সঙ্কীর্ণ হয়ে আসে। পিছন আর সামনে থেকে ধূলো উড়িয়ে রাস্ত কঁাপিয়ে লৱী চলে যায়, শব্দ পেলেই বাস চালক কানাই গতি মন্থর করে যত পারে নর্দমার ধার ঘেঁষে সরে যায়, লরী পেরিয়ে গেলে গাল দিতে থাকে চাপা গলায় । চাপা বসেছে রাস্তার ভেতরের দিকের জানালায়—লারী কিছু দূরে থাকতেই সে নিশ্বাস বন্ধ করে চোখ বোজে।। ৫ চোখ বুজে থাকারসময়েই একবার প্রচণ্ড আওয়াজের সঙ্গে সে ধাক্কা খেয়ে পাশের বুড়িকে নিয়ে নীচে পাড় যায়। বাসটাও একটু কাত হয়ে থেমে পড়ে সঙ্গে সঙ্গে । । একজন গোরা চাপাকে পাজ কোলা করে তুলবার চেষ্টা করতেই সে ধড়মড়িয়ে উঠে পড়ে। দরজা দিয়ে বেরোবার জন্য প্যাসেঞ্জারদের তখন ঠেলা ঠেলি হুড়োহুড়ি পড়ে গেছে । দু’তিনজন দরজা থেকে সোজা নালায় গিয়ে পড়ে। কানাই গালাগালি বন্ধ করে চেচায়, “ভয় নেই, ঠিক আছে! ভয় নেই ঠিক আছে!’ ঠিকই আছে কলটা । ডাইনের মাডগার্ডটা শুধু ভেঙ্গেছে আর YR Ñ