পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/১৩২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


電t雷可t可* 可的可引研 পোড়া মাদুলী আর চুম্বকপাথরের চিকিৎসাতেও নাকি বঁচেনি ট সাপটাপ হয় তো কামড়েছে দু’একজনকে ইতিমধ্যে, কুকুর হয় তো। তেড়ে গেছে ঘেউ ঘেউ করে, গরু শিঙ নেড়েছে। কিন্তু বিশেষ কিছু কারো হয়নি, কারণ হলে সেটা মানুষের মনে থাকত। রাহাজানির দু’একটা রোমাঞ্চকর কাহিনী শোনা যায়, কিন্তু কবে যে সে ঘটনাগুলি ঘটেছিল। কেউ বলতে পারে না, একেবারে ঘটেছিল। কিনা তারও কোন প্ৰমাণ নেই। এ পথের আশেপাশের বস্তি-গাগুলিতে যাদের বাস, চুরি ডাকাতি তারা যদি করে, ধারে কাছে কখনো করে না। এ পথের একলা পথিকের গায়ে হাত দেয়া দূরে থাক, তাকে ভয় দেখাবার ভরসা; পৰ্য্যন্ত ওদের নেই। ওরকম কিছু ঘটলে দায়ী হবে ওরাই। পুলিশও প্ৰমাণ খুজিবে না, জমিদার কাৰ্ত্তিক চক্ৰবৰ্ত্তও নয়-দু'পক্ষের শাসনে থেতো হয়ে যাবে ওরা, পুড়ে ছাই হয়ে যাবে তাদের কুঁড়েগুলি, বাতিল হয়ে যাবে আশেপাশে বাস করার অনুমতি। একবার সদরে টাকা নিয়ে যাচ্ছিল গোমস্তা রাধাচরণ, সঙ্গে ছিল। দু’জন পাইক । জন সাতেক লোক তাদের মারধোর করে টাকা কেড়ে, নিয়ে যায়। পরে তারা ধরা পড়ে জেলে গিয়েছিল, ফুলবাড়ীর পাঁচজন আর মালদিয়ার দু’জন-পরে। দু’দিকের চাপে রাঘবের আর কাছাকাছি আরও তিনচারটে বস্তি গায়ের মানুষেরা থেতো হয়ে যাবার পরে । পথ থেকে হাক এলে এরা সাড়া দেয়। ভীরু লোক দাবী করলে সঙ্গে পৌছেও দিয়ে আসে এদিকে ফুলবাড়ী বা ওদিকে সড়কের মোড় পৰ্য্যন্ত। একলা ভীরু পথিকের ভালোমন্দের দায়িক ওরাই কিনা ৷ Ry