পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/২৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


可留可可叶可鸟可分研 বেঁচে ফিরেছে মেয়েটা, ভগবান ছিল না তো কি ? ভগবান বঁাচত কি, মেয়েটা ফিরেছে তো মরে এসে। তা ভগবান আছেন।” কেউ হাসে না । সভায় ভগবান এসে পাড়ায় শঙ্করের মতো অযাচিত আবির্ভাবের কৌতুহলমূলক একটা অনুভূতি জাগে অনেকের মনে । জমায়েত স্তব্ধ হয়ে থাকে খানিকক্ষণ। শুধু মেয়েদের মধ্যে গুজগাজ ফিস-ফাস চলতে থাকে অবিরাম। মুক্তার মত মেয়েরা আবার গাঁয়ে ফিরুক এটা যারা ঠিক পছন্দ করে না তারাও চুপ করে থাকে। শেষে দাওয়া থেকে ভুবন বলতে যায়, “কথা হল কি, ও যদি সদরে সত্যি খেটে খেতে যেত, খেটেই খেত—” গিরি তাড়াক করে ঘাড় উঁচু করে গলা চিরে ফেলে, “খেটে খায়নি তো কি ? মোরা এক সাথে খেটে খেয়েছি। এ পাড়ায় দু’বাড়ী বিগিরি করেছি, এক দোকানে মুড়ি ভেজেছি। কোন মুখপোড়া বলে খেটে খাইনি মোরা, শুনি তো একবার ? প্ৰায় সকলেই জানে একথা সত্য নয় গিরির। কয়েকজন স্বচক্ষে মুক্তাকে দেখেছে। সদরে। কিন্তু কেউ কথা বলে না। কিছু কাল আগে গায়ে লজ্জাবতী লতার মতো কঁচা মেয়ে গিরির পরিবর্তনটা সকলকে আশ্চৰ্য্য করে দেয়া-খুব বেশী নয়। যে দিন কাল পড়েছে। দাওয়ার নাছোড়বান্দা মাথা টেকো নন্দীই শুধু বলে, “কিন্তু বহু লোকে যে চোখে দেখেছে। ফণি বলছে সে নিজের চোখে—” মাঝবয়সী বেঁটে ফণি চট করে দাড়িয়ে প্ৰতিবাদ জানায়, “না না, আমি তা বলিনি। আমি কেন ও-কথা বলতে যাব ? ? RO