পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৬০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দিনের প্রভাকরে প্রচুর পদ্য থাকিত। তাহাই পাড়তাম, নাড়িতাম-চাড়িতাম, মুখস্ত করিতাম। প্ৰতি বৎসরের ১লা বৈশাখের প্রভাকর অবয়বে ছয় ভাগের কলিকাতা গেজেটের মত পুরু । সম্বৎসরের প্রধান ঘটনাবলী, রং বিরং পদ্যে, ঈশ্বর গুপ্তের সেই সরল সতেজ লেখনীতে প্ৰকাশিত হইত । পূর্বেই বলিয়াছি ১৮৪৬ সালে অগ্রহায়ণ মাসে আমার জন্ম হয়। ১৮৫৬ সালের আশ্বিন মাসে উল ছাড়িয়া আসি। তখন আমার বয়স পুরা দশ বৎসর হয় নাই । ইতিমধ্যে তিনবারকার বার্ষিক প্রভাকর আমি পড়িয়াছিলাম ; অর্থাৎ সপ্তম বর্ষে আমি প্রভাকর পড়িয়াছি, বুঝিয়াছি, মুখস্ত করিয়াছি। ঐ তিন বৎসরের মধ্যে অন্নদামঙ্গল, তিন খণ্ড চারুপাঠ, বাহবিস্তুর সহিত মানব প্ৰকৃতির সম্বন্ধ-বিচার, কাদম্বরী, মুক্তারাম বিদ্যাবাগীশের আরবীয়োপাখ্যান ও সেক্সপীয়র হইতে অপূর্বোপাখ্যান ofia ×forfè31 2yfoo ofà of**Tifolio | Honi soi qui maly pense. এই নয়। বৎসর মধ্যে তিনজন ডেপুটি ইনস্পেক্টরকে উলায় দেখিয়াছিলাম । একজনকার নাম করিয়াছি।--বেলুড়ের রামলাল মিত্র ; দ্বিতীয়-কৃষ্ণনগরের ব্ৰজনাথ মুখোপাধ্যায়। ইনি কৃষ্ণনগরের ব্ৰজ বাবু বলিয়া বিখ্যাত এবং পরে কৃষ্ণনগরে স্বয়ং স্কুল স্থাপনা করেন । তৃতীয় ব্যক্তি গরিফার চন্দ্ৰশেখর গুপ্ত ; বিখ্যাত বি. এল. গুপ্তের পিতা । ইহার পত্নী অৰ্থাৎ বি. এল. গুপ্তের মাতা সুন্দর সাধুভাষায় বাঙ্গালা লিখিতে পারিতেন। আমি তাহার লেখা পত্র তৎকালে দেখিয়াছিলাম ; একটু বেশী সাধুভাষা তাহাতে ছিল,-“পদবীতে পদাৰ্পণা” প্ৰভৃতি বেতালপচিশী পদ সেই পত্রে ছিল । তাহা থাকুক, কিন্তু লেখা অতি প্ৰাঞ্জল, সুন্দর ও সরল। পিতা সেই পত্র আদর্শরূপে আমার মাতাকে দেখাইয়াছিলেন, আমার বেশ মনে পড়িতেছে । কলিকাতার খবর, তখন ত জানিতামই না, এখনও ভাল জানি না । তখনকার কালে আমাদের গঙ্গার দু ধারের পল্পীর মধ্যে বেহাৱী বানুর মাতার মত কেহ যে লিখিতে পারিতেন, এমন বোধহয় না । ১৮৫৬ সালে মার্চ মাসে চন্দ্ৰশেখর গুপ্ত মহাশয় উলার বিদ্যালয় সকল পরিদর্শন করিতে যান। অবশ্য আমাদের বাসাতেই ছিলেন । আমি কোন স্কুলে পড়িতাম না, গুপ্ত মহাশয় আমাকে পৃথক পরীক্ষা করেন এবং বিদ্যাসাগর মহাশয় লিখিত “জীবনচরিত” পরীক্ষায় সন্তুষ্ট হইয়া আমাকে পারিতোষিক দেন । সে বইখানি আমাদের বাড়িতে আজিও আছে। এখানি তৃতীয় বারের ছাপা । প্ৰথম বারে ১৭৭১ শকে ভাদ্র মাসে ছাপা হয়। দ্বিতীয় বারে ১৭৭৩ শকে চৈত্র মাসে, আর তৃতীয় বারের এই সংস্করণ ১৭৭৭ শকের বৈশাখ মাসে ছাপা হয়। প্ৰাইভ পাইয়া অৰশু আমি জীবনচরিত পাঠ করিয়াছিলাম । a. ফোকাল ডিসটানস পদার্থটা কি, কাহাকে বলে, তাহ অবশ্য তখন কিছুই বুকি RR