পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৫৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মহানুভব ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর। এই সময় বিদ্যাসাগর মহাশয়ের সদাশয়তার এক নিদর্শন পাই, তাহা স্মরণ রাখিবার যোগ্য । আমার বাড়িতে আসিয়া উপোনের পীড়া বৃদ্ধি পাইল। এমন কি, তাহার জীবনের সম্বন্ধে আমরা নিরাশ হইতে লাগিলাম। এই অবস্থাতে উপেন একদিন আমাকে বলিলেন, “যদি আমার বাবার সঙ্গে একবার দেখা করিয়ে দিতে পার, বড় ভালো হয়। আমি বোধ হয়। আর বেশি দিন বাঁচব না।” শ্ৰীনাথ দাস মহাশয়ের সহিত আমার আলাপ পরিচয় ছিল না, সুতরাং আমি নিজে গিয়া অনুরোধ করিতে পারি না। কি কৱি, এই চিন্তায় প্ৰবৃত্ত হইলাম। অবশেষে মনে হইল, বিদ্যাসাগর মহাশয়ের দ্বারা শ্ৰীনাথ দাস মহাশয়কে ধরিয়া আনিতে হইবে। তাই একদিন প্ৰাতে বিদ্যাসাগর মহাশয়ের নিকট গেলাম। তিনি যে উপোনের গৃঢ় চরিত্রের কথা পূর্বেই শ্ৰীনাথ দাস মতাশয়ের মুখে শুনিয়া, তাহার প্রতি হাডে চটিয়া ছিলেন, আমি তাহা জানিতাম না । আমি উপোনের সংস্রবে থাকি ও তাহাকে বাড়িতে স্থান দিয়াছি শুনিয়াই তিনি আমাকে অনেক তিরস্কার করিলেন ; বলিলেন “কি, যাকে দেখলে পা থেকে মাথা পর্যন্ত জুতা মারতে ইচ্ছা করে, তার হয়ে তুই আমাকে অনুরোধ করিস y” আমি বুঝিলাম তাহার দ্বারা এ কাজ হইবে না। আমি বলিলাম, “আপনি বাপ-বেটার দেখা করিয়ে না দিলে আর কারও দ্বারা হবে না । তবে আমি যাই । কি আর করব। উপোনের শেষ অনুরোধটা রাখতে পারা গেল না।” এই বলিয়া উঠিতে প্ৰবৃত্ত হইলাম। আমাকে বিরস বদনে উঠতে দেখিয়াই বিদ্যাসাগর মহাশয় বলিলেন, “যাস নে, রোস ; মরণকালে বােপকে দেখতে চেয়েছে, শুভ বুদ্ধি হয়েছে, এটা ও ভালো ; দেখি কিছু করতে পারি কি না।” একটু চিস্তা করিয়াহ বলিলেন, “কাল প্ৰাতে ৭টা-৮টার মধ্যে তার ব্যাপকে তোর বাড়িতে আনিব, তুই ঘরে থাকিস ।” “আমি চলিয়া আসিলাম । তৎপরদিন বিদ্যাসাগর মহাশয় যে কবিয শ্ৰীনাথ দাস মহাশয়কে আমার বাসাতে আনিয়াছিলেন, তাহা শুনিলে বিস্মিত হইতে হয়। তাহার বিবরণ এই । সেই দিন প্ৰাতে সাতটাবু সময় বিদ্যাসাগর মহাশয় শ্ৰীনাথ দাস মহাশয়ের ভবনে গিয়া উপস্থিত । উপস্থিত হইয়া শ্ৰীনাথবাবুকে বলিলেন, "শ্ৰীনাথ, তোমার গাড়ি যুক্ততে বল দেখি, তোমাকে এক জায়গায় যেতে হবে।” শ্ৰীনাথধাবু জিল্লুস। করিলেন, “কোন জায়গায় ? বিন্যাসাগর মহাশয় বলিলেন, "আঃ চল না, রাস্তায় বলব।” শ্ৰীনাথবাবু গাড়ি যুতিতে আদেশ করলেন। দুইজনে গাড়িতে বসিয়া শ্ৰীনাথবাবুদের গলি হইতে বাহির হইয়া বড় রাস্তায় আসিলে বিদ্যাসাগর মহাশয় বলিলেন, “কোথায় নিয়ে যাচ্ছি, জানো ? তোমার ছেলে উপেন পীড়িত হয়ে কাশী থেকে এসে এক বন্ধুর বাসায় উঠেছে। তার ব্যােয়রাম বড় শক্ত, বঁচে কি না সন্দেহ। সে মৃত্যু শয্যায় S 9