পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৫৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


হাইতাম । ইহার কয়েক বৎসর পরে উপেন বিলাতে যান, ও সেখানে কয়েদ হন । এ দেশে ফিরিয়া দেশীয় রঙ্গভূমির অভিনেতা ও অভিনেত্রীদিগের সহিত মিলিত হইয়া কোনো প্রকারে কিঞ্চিৎ অর্থ্যোপার্জনের প্রয়াস পান। এই সময়ে তাহার পুরাতন বন্ধুরা সকলে তঁহাকে পরিত্যাগ করেন। আমিও সেই সঙ্গে উপেন হইতে দূরে পড়ি । আর একটি বিধবা বালিকার কাহিনী। এই স্থানে বিন্যাসাগর মহাশয় সংক্রান্ত আর একটি ঘটনা উল্লেখয্যোগ্য। যোগেন ও মহালক্ষ্মীর সহিত একত্র বাসকালে এই ঘটনাটি ঘটিয়াছিল। যোগেনের বিবাহের কিছুদিন পরে আমরা চাপাতলার দীঘির পূর্ববর্তী একটি বাড়িতে গিয়া প্রতিষ্ঠিত হইলাম। সেখানে বিদ্যাসাগর মহাশয় সপ্তাহে দুই-তিনদিন আসিয়া আমাদিগকে দেখিতে লাগিলেন এবং আবশ্যকমতে সাহায্য করিতে লাগিলেন। সেই পাড়াতেই পাশের বাড়িতে একটি ছুতার জাতীয় বিধবা স্ত্রালোক থাকিত । তাহার একটি ছয়-সাত-বৎসর বয়স্ক মেয়ে ছিল, সেটিও বিধবা । তাহার মা যখন শুনিল যে আমরা মহালক্ষ্মীর বিধবাবিবাহ দিয়াছি, তখন তাহার ইচ্ছ। হইল যে নিজের বিধবা মেয়েটির আবার বিবাহ দিবে, আমাদিগকে সেই ইচ্ছা! জানাইল । মেয়েটি সকাল বিকাল আমাদের বাড়িতে আসিতে ও আমাদের সঙ্গে কাল যাপন করিতে লাগিল । আমাকে ‘দাদা’ বলিয়া ডাকিত এবং আমার গলা জড়াইয়া আমার কোলে বসিয়া থাকিতে । একদিন প্ৰাতে সে আমার গলা জড়াইয়া কোলে বসিয়া আছে, এমন সমযে বিদ্যাসাগর মহাশয় আসিলেন। মেয়েটিকে আগে তিনি দেখেন নাই, আমার কোলে তাহাকে দেখিয়া বলিলেন, “ও মেয়েটি কে হে ? বাঃ, বেশ সুন্দর মেয়েটি তো।” আমি বলিলাম, ‘ওটি পাশের বাড়ির একটি ছুতরের মেয়ে, আমাকে দাদা বলে, আমার কোলে বসতে ভালোবাসে। ওটি বিধবা, ওর মা ওর বিয়ে দিতে চায়, তাই আমাদের কাছে দিয়েছে।” এই কথা শুনিয়াই বিদ্যাসাগর মহাশয় চমকাহিয়া উঠিলেন ; “বল কি ! এইটুকু মেয়ে বিধবা ।” তাহার পর তাহাকে ডাকিলেন, “আয় মা, আমার কোলে আয় ।” সে তো লজ্জাতে যাইতে চায় না, আমি কোলে করিয়া তাহার কোলে বসাইয়া দিলাম। বিদ্যাসাগর মহাশয় তাহাকে বুকে ধরিয়া আদর করিতে লাগিলেন। শেষে যাইবার সময় মেয়েটিকে ও তাহাব মাকে পালকি করিয়া তৎপরু দিন বৈকলে তাহাৰ্ব্ব ভবনে পাঠাইবার জন্য অনুরোধ করিয়া গেলেন এবং আমাকে বলিয়া গেলেন, “মেয়েটিকে বেথুন স্কুলে ভর্তি করে দেও, মাহিনা আমি দেব।” পরদিন বৈকালে মেয়েটিকে ও তাহার মাকে পালকি করিয়া বিদ্যাসাগর মহাশয়ের বাটিতে পাঠানো গেল । তাহারা সন্ধ্যার সময় আসিয়া বিদ্যাসাগর মঙ্গাশয্যের জননী। ভগবতী দেবীর যে প্ৰশংসা করিল তাহ শুনিয়া আমাদের মন পুলকিত হইয়া, Sgr