পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৭৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সেই ভাৱ পরিত্যাগ করিয়াছেন, এখন আমাকে গ্ৰহণ করিতে হইবে। পাকড়াশী মহাশয়ের প্রতি আমার প্রগাঢ় শ্রদ্ধা ছিল। আমি তাহার উপদেশে বিশেষ উপকৃত হইয়াছি। অ এর বাস্তবিক ব্ৰাহ্ম আচাৰ্যদিগের মধ্যে চিন্তাশীলতা মৌলিকতা ও আধ্যাত্মিক দৃষ্টি বিষয়ে এরূপ অল্প লোক দেখিয়াছি। তঁহার পরিত্যক্ত বেদী আমি গ্ৰহণ করিব, ইহা ভাবিয়া সঙ্গুচি ত হইলাম। কিন্তু তঁহাদের হাত এড়াইতে পারিলাম না । শেষে, এক শুক্রবারে গিয়া উপাসনা করিতে স্বীকৃত হইলাম। এবারে ও উপদেশ লিখিয়া লইয়া গিয়েছিলাম। এই একবার উপদেশ দিয়া আমার বিপদ দশ গুণ বাড়িয়া গেল। তেঁাহারা আমাকে নাছোড়বান্দা হইয়া ধরিলেন । কাজেই আচার্যের ভার আমাকে গ্ৰহণ করিতে হইল। এই ভার আমার প্রভূত অধ্যাত্মিক উন্নতির ও আচার্যের কার্য শিক্ষার উপায়স্বৰূপ হইল। আমি কযেক বৎসবে এই কাজ করিয়াছিলাম। যেখানেই থাকি, শুক্রবার সন্ধ্যার সময় সিন্দুরিয়াপটীতে আসিয়া উপস্থিত হইতাম । fক বলিব, সে বিষয় সপ্তাহ ক’লে ভাবিতম। উপাসক-মণ্ডলীর অভাব নিজ চিত্তে ধারণা করিবার চেষ্টা করি তাম, প্ৰতেকের সুখে সুখী, দুঃখে দুঃখী হইবার চেষ্টা কারিতাম। সংক্ষেপে বলিতে গেলে, আচার্যের দায়িত্ব অনেকটা অনুভব করিতাম । এই দায়িত্বজ্ঞ নই। আমাকে ফুটাইয়াছে । ক্ৰমে সেই ক্ষুদ্র উপাসক-মণ্ডলীর সকলের সঙ্গে ভালোবাসা জন্মিয় গেল । সেই সম্বন্ধ বহু কাল কুঁহিয়াছে । গোপালচন্দ্ৰ মল্লিক, নেপালচন্দ্ৰ মল্লিক, সিন্দুরিয়াপটী পরিবারের দুই ভাই যতদিন জীবিত ছিলেন, আমাকে বিধিমতে নানা বিষয়ে সাহায্য করিয়াছেন । শেষে সাধারণ ব্ৰাহ্মসমাজ স্থাপিত হুহলে গোপালচন্দ্ৰ মল্পিক আমাদেৱ সঙ্গে-সঙ্গে ইহাতে প্ৰবেশ করেন ও ব্ৰাহ্মমতে বিবাহ করিয়া স্বীয় পিতা কর্তৃক পরিত্যক্ত হন। তাহার পিতা স্বৰ্গীয় মণিলাল মল্লিক অ্যাদি সমাজ ভুক্তি ব্ৰাহ্ম ছিলেন। তিনি ঐ পারিবারিক সমাজ স্থাপন করেন । ১৮৭১ সালের ১৪ই আষাঢ় আমার পুত্র প্রিয়ানাথের জন্ম হয় । ঢাকার অবলাবান্ধব পত্রিকা । এই সময়ের একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা, অবলাবান্ধব সম্পাদক ব্ৰাহ্মসমাজে সুপরিচিত দ্বারকানাথ গঙ্গোপাধ্যায়ের সহিত মিলন। তখন ঢাকা সমাজ-সংস্কারের প্রধান ক্ষেত্র হইয়া উঠিয়াছিল। এই সময়ে ‘মহাপাপ বাল্যবিবাহ” নামে এক পত্রিকা ঢাকা হইতে বাহির হয়, তাহাতে সেখানকার যুবক দলেয় উপরে আমাদের অতিশয় শ্রদ্ধা জন্মে। এই রঙ্গভূমিতে অবলাবান্ধব দেখা দিল । আমরা ভাবিলাম, এ কে বঙ্গদেশের এক কোণ হইতে নাৰীকুলের হিতৈৰী হইয়া দেখা দিল ? অবলাবান্ধবের সম্পাদককে তখন চিনিতাম না, কিন্তু তঁহার তাজতাজা কথা প্ৰাণ হইতে আসিতেছে বোধ হইত ও আমাদের বড় ভালো লাগিতা। Ο Σ. Ο