পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


DD BBD BD DDBB DBDYquuuDBDBS BBDBDDDS DBDSS BB দিকটা অভাব ছিল, তিনি সেই সকল গুণে পূর্ণমাত্রায় ভূষিত ছিলেন। আমি বোম্বায়ে কাৰ্য্যারম্ভ করবার কিছু পরে কলিকাতায় এক “স্বদেশী’ মেলা প্ৰবৰ্ত্তিত হয়। বড়দাদা নবগোপাল মিত্রের সাহায্যে মেলার সূত্রপাত করেন, পরে মেজদাদা তাতে যোগদান করায় প্রকৃতপক্ষে তার শ্ৰীবৃদ্ধি সাধন হ’ল। কলিকাতার প্রাস্তবত্তী কোন একটি উদ্যানে বৎসরে তিন চারিদিন ধরে এই মেলা চলতো । সেখানে দেশী জিনিসের প্রদর্শনী, জাতীয় সঙ্গীত, বক্তৃতাদি বিবিধ উপায়ে লোকের দেশানুরাগ উদ্দীপ্ত করবার চেষ্টা করা হ’৩। এই মেলা উপলক্ষে মেজদাদা কতকগুলি জাতীয় সঙ্গীত রচনা করেন। আর সেই মেলাই আমার ভারত সঙ্গীতের 哥可帝下列一 भिgव्ल मरर उछाझऊ मछान q夺5f可可可@叶q, গাও ভারতেরি যশোগান । এদিকে সঙ্গীতাদি কলাবিদ্যায়। যেমন তার পারদর্শিতা ছিল, সে সময়কার সাহিত্যিকদের মধ্যেও তিনি অগ্রগণ্য ছিলেন। তঁর ‘ প্ৰণীত “বিক্রমোর্বিশী’ নাটকের একটি সুন্দর অনুবাদ পাওয়া পিয়াছে। তাঁর ভ্রাতুষ্পপুত্ৰ গগনেন্দ্রনাথ এইটি উদ্ধার করে সাহিত্য সমাজে প্রচার করেছেন দেখে আমার অত্যন্ত আহলাদ হয়েছে । তঁর লিখিত কতকগুলি ঐতিহাসিক প্ৰবন্ধ ছিল-আমি এক সময়ে তার হাতের লেখা পুথি দেখেছি, আর তিনি আমাকে পত্রেও লিখেছিলেন যে ভারত ইতিহাসের এক পৃষ্ঠা লিখতে আরম্ভ করেছেন-মোগল সাম্রাজ্য মনে হচ্ছে। --আক্ষেপের বিষয় যে এ সব লেখা কোথায় অদৃশ্য হয়ে গেল, কোনই সন্ধান পাওয়া যায় না“কোন খানে লেশ, নাহি অবশেষ, সেদিনের কোন চিহ্ন’ । নাট্য অভিনয় বিষয়েও মেজদাদার বিশেষ উৎসাহ ছিল । আমি ইংলণ্ড থেকে ফিরে-আসবার দুই বৎসর পরে ছুটী নিয়ে কলকাতায় এসে দেখি তাদের বাড়ীতে 'নবনাটক” অভিনয়ের প্রভৃতি আয়োজন হয়েছে-আমি সেই সমারোহের মধ্যে এসে পড়ি । রঙ্গমঞ্চে যবনিকার শিরোবেষ্টনী বিক্রমসভার নবরত্বের নামে অঙ্কিত ধন্বাস্তরি ক্ষপণকামরসিংহ শঙ্ক র্বেতাল ভট্ট ঘটকপার কালিদাসঃ খাতে বরাহমিহিরো নৃপতেঃ সভায়াং রত্নানি বৈ বাবারুচি নব বিক্ৰমন্ত । নবনাটকখানি রামনারায়ণ তর্করত্ন প্রণীত, বহুবিবাহপ্রথায় পারিবারিক দুঃখজালা অশান্তি প্ৰকটন সূত্রে লোকশিক্ষা দেওয়া ঐ নাটকের উদ্দেশ্য । আমাদের বাড়ীর ছেলেরা VV