পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মহাশয় আমাদের তর্কবিতর্কের সুন্দর মীমাংসা করে দিতেন। এই সভার কাৰ্য্য অনেক দিন বেশ নিয়মপূর্বক চলেছিল। মাষ্টারমশায়ের প্রতি আমাদের প্রগাঢ় ভক্তি তালবাসা ছিল, তিনিও পিতার ন্যায় আমাদের সর্বাঙ্গীণ উন্নতিসাধনে যত্নবান ছিলেন । তারি শিক্ষাগুণে আমি ঐ সময়ে প্রেসিডেন্সি কলেজের কোন এক সভায় ‘প্ৰাচীন ভারতের রণনীতি” বিষয়ক একটি ইংরাজি প্ৰবন্ধ পাঠ কবি-কেশবচন্দ্র সেন সেই অধিবেশনে একজন প্ৰধান বক্তারূপে উপস্থিত ছিলেন। সাত বৎসর বয়সে আমি হিন্দু স্কুলে ভৰ্ত্তি হই, তখন তার নাম ছিল “হিন্দু কলেজ।” প্ৰথম দুই বৎসর একাদিক্ৰমে দুইটি প্ৰাইজ পাই-দ্বিতীয়খানি সচিত্র Robinson ( rusole-বালকের পক্ষে এমন সুপাঠ্য পুস্তক আছে কি না সন্দেহ । দুবৎসর পরে বনমালী বাবুর ক্লাসে উঠি । তিনি একজন অতি কঠোর প্রকৃতির মাষ্টার ছিলেন। ছেলেদের উপর বড়ই উৎপীড়ন করতেন, সব চেয়ে যে সুশীল বালক সেও তার প্রচণ্ড চপেটাঘাত এড়াতে পারত না । বন্ধুবর তারকনাথ পালিত র্তার চপেটাঘাতে একবার ঘুরে পড়ে গিয়েছিলেন। আমরা তাকে যমের ন্যায় ভয় করে চলতুম-যমদূতের মত তার সেই ভীষণ কৃষ্ণমূৰ্ত্তি মনে করলে এখনো ভয় হয়। उद्धकeथ *विड বনমালী বাবুর ক্লাসে আমার পড়াশুনা কেমন হ’ত মনে নাই। কিন্তু একটি জিনিসের জন্যে সে বৎসরটি আমার চিরস্মরণীয় থাকবে—সে কি না বন্ধুলাভ। আমার মূহাধ্যায়ী শিক্ষার্থীদের মধ্যে আমি যে একটি বন্ধুরত্ব পেয়েছিলুম। তিনি আমার চিরজীবনের সঙ্গী হয়ে রইলেন । ছেলেবেলায় তিনি আমাকে কত ভালবাসতেন, আমাকে ভাল ভাল পায়রা-লক মুক্ষী লোটন গলাফোলা এনে দিয়ে কত রকমে আমাকে সুখী করবার চেষ্টা করতেন, স্কুলে ও বাড়ীতে সর্বদাই আমরা মাণিক জোড়ের মত এক সঙ্গে থাকতুম। আমার ছেলেবেলাতে একবার এমন বাত হয়েছিল যে চলতে কষ্ট হ’ত-তখন তার কাধে ভর দিয়ে দিয়ে চলতুম। বড় হয়ে যখন তার কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়লুম। তখনো আমরা বন্ধুত্বসূত্রে বাধা । আমি বিলাত যাই ১৮৬০ খৃষ্টাব্দে, বয়স তখন ১৯ ; বিলাতে থাকতে আমাদের পত্র ব্যবহারে কোনদিন ক্ৰটি হয়নি। যখন আমি বোম্বায়ে কাজ আরম্ভ করি তখনও তাৱক বিলাত যাননি । DD DDD DLJYLDD DBDB BBD DB LBKDuS DBBDB DB BDJAA Aq খৃষ্টাব্দে। ব্যারিষ্টার হয়ে দেশে ফিরে আসতে আসতেই প্ৰায় তিনি ব্যাবিটাবীতে Q e