পাতা:আত্মচরিত (শিবনাথ শাস্ত্রী).pdf/৩৪৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Taqwa of Vos তিনি যাইবার সময় হাসিয়া বলিয়া গেলেন, “একে মারে কে ? এমন মানসিক বল ত সচরাচর দেখা যায় না৷ ” যাহা হউক বাবা কয়েক দিনের মধ্যে সারিয়া উঠিলেন। তিনি অল্প পথ্য করিলে, আমরা তঁহাকে সুস্থ দেখিয়া কলিকাতা যাত্ৰা করিলান । তুলে দিয়ে আসব।” আমি বলিলাম, “না। বাবা, তা হবে না। আপনার বোমাকে ত আমি এনেছি, আমিই নিয়ে যাব, আপনার যাওয়া হবে না !” তিনি কোনও মতেই সে কথা শুনিলেন না ; মহা চেষ্টাতে উঠিতে চাঙ্গিলেন। কি করা যায়, দুই জন লোক তার কাধে হাত দিয়া তাঁহাকে শয্যা হইতে তুলিলেন এবং ধরিয়া আস্তে আস্তে সিড়ী দিয়া নীচে নামাইলেন, তারপরে বাবা কোনও মতে লাঠিতে ভর দিয়া ও মানুষের ঠাত ধরিয়া ধীরে ধীরে গলির মোড়ে বড় রাস্তার ধারে আমাদের গাড়ির নিকট পৰ্য্যন্ত আসিলেন। যেই আমি ও বিরাজমোহিনী তার পদধূলি লইয়া গাড়িতে উঠিলাম অমনি বাবা কঁাদিয়া মাথা ঘুরিয়া রাস্তায় বসিয়া পড়িলেন। সেখান হইতে ধরাধরি করিয়া তাহাকে বাসায় লইয়া যাওয়া झ्छेढ ।